মিষ্টি নিয়ে দুই ভায়রার মারামারি, আহত ৬ 

মিষ্টি নিয়ে দুই ভায়রার মারামারি, আহত ৬ 

আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ০২:১৪ ২৫ অক্টোবর ২০২০  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

বরগুনার আমতলীতে স্ত্রীর নানির কুলখানীতে মিষ্টি না দেয়াকে কেন্দ্র করে দুই ভায়রার মারামারিতে উভয় পক্ষের ছয়জন আহত হয়েছে। 

শনিবার দুপুরে  উপজেলার গুলিশাখালী ইউপির ডালাচারা গ্রামের মাদরাসার সামনে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, উপজেলার গুলিশাখালী ইউপির ডালাচারা গ্রামের বেলায়েত গাজীর ছেলে জামাল গাজী ও একই ইউপির গুলিশাখালী গ্রামের সফেজ মিয়ার ছেলে সোহেল মিয়া তারা দুই ভায়রা ভাই।  ১৭ অক্টোবর তাদের স্ত্রীর নানির কুলখানীতে অংশ নিয়ে ভায়রা সোহেল মিয়া ১৫ কেজি মিষ্টি দেন। অপর ভায়রা জামাল কোনো মিষ্টি দেননি। এই মিষ্টি দেয়া না দেয়া নিয়ে দুই ভায়েরার মধ্যে কথা কাটাকাটি, হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।  

সেই দিনের ঘটনার রেশ ধরে দুপুরে ভায়রা সোহেল মিয়া সন্ত্রাসী বাহিনী এনে লাঠিসোটা নিয়ে ভায়রা জামাল গাজীর বাড়িতে হামলা চালাতে যায়। এ সংবাদে ভায়রা জামাল গাজী তার স্বজন ও স্থানীয়দের ডালাচারা মাদরাসার সামনে জড়ো করে। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে হাতাহাতি ও মারামারির ঘটনা ঘটে। এতে উভয় পক্ষের ছয়জন আহত হয়েছে। আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং মাইনুদ্দিন নামের একজনকে পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।  

খবর পেয়ে আমতলী থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে সাব্বির খান, জলিল গাজী, শওকত ইয়ামিন প্যাদা, হাবিবুর রহমান খান, জাকির খান, জামাল গাজী ও রিপন খানসহ সাতজনকে আটক করে। এ সময় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তিনটি মোটরসাইকেল উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ডা. সাহাদত হোসেন বলেন, মিজানুর রহমানের পা ভেঙে যাওয়ায় ও লিটননের মাথায় গুরুত্বর আঘাত থাকায় তাদের দুইজনকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। বাকীরা আমতলী হাসপাতালেই চিকিৎসা নিচ্ছেন।

আমতলী থানার ওসি মো. শাহআলম হাওলাদার জানান, সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে তিনজনকে আটক করে জিজ্ঞাবাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। এ বিষয়ে এখনো কোনো লিখিত অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে