নিজ বাড়িতে জায়গা নেই দুই মায়ের, অভিযোগ গড়িয়েছে থানা ও আদালতে

নিজ বাড়িতে জায়গা নেই দুই মায়ের, অভিযোগ গড়িয়েছে থানা ও আদালতে

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৮:৩০ ২৩ অক্টোবর ২০২০  

কষ্টে দুঃখে বাড়ি ছেড়ে সুবিচারের আশায় লিখিত অভিযোগ করেছেন থানা ও আদালতে।

কষ্টে দুঃখে বাড়ি ছেড়ে সুবিচারের আশায় লিখিত অভিযোগ করেছেন থানা ও আদালতে।

নিজের বাড়ি থেকে বিতাড়িত দুই মা। মারধর, নির্যাতন ও অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে বাড়ি ছাড়া ওই দুই জননী। কষ্টে-দুঃখে বাড়ি ছেড়ে সুবিচারের আশায় লিখিত অভিযোগ করেছেন থানা ও আদালতে। অভিযোগের অভিযুক্তরা তাদেরই গর্ভে ধারন করা সন্তানরা। ভিন্ন ঘটনা দুটি চুয়াডাঙ্গা শহরের দুই প্রান্তের।

জানা গেছে, গত ১১ অক্টোবর চুয়াডাঙ্গা শহরের দক্ষিণ হাসপাতাল পাড়ার মৃত হারুন অর রশিদের স্ত্রী সুলতানা রাজিয়া তার ছেলে সুলতান আহমেদের বিরুদ্ধে চুয়াডাঙ্গা আমলী আদালতে মামলা করেন। মামলায় উল্লেখ করা হয়, গত ১০ অক্টোবর ছেলে সুলতান আহমেদ তার মাকে মারধর করেন এবং ঘরে থাকা প্রায় তিন লাখ টাকার বিভিন্ন সামগ্রী জোর করে বিক্রি করে দেন।

এ মামলায় আসামি সুলতান আহমেদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানার আদেশ দেন আদালতের বিচারক সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সাজেদুর রহমান। ওই মামলায় গত ১৮ অক্টোবর পুলিশ সুলতান আহমেদকে গ্রেফতার করে। পরদিন ১৯ অক্টোবর আদালত থেকে সুলতান আহমেদ জামিনে মুক্ত হন। জামিনে মুক্ত হওয়ার তিনদিন পর সুলতান আহমেদ বাড়ির ভেতরে থাকা অনুমান এক লাখ টাকার বিভিন্ন ধরনের ফলজ গাছ কেটে বিক্রি করে দেন।
জামিনে মুক্ত হওয়ার পর নতুন করে আবারো শুরু হয়েছে অত্যাচার। এ পরিপ্রেক্ষিতে ছেলের বিরুদ্ধে আজ শুক্রবার নতুন করে চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় আরো একটি লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে।

একাধিক মামলার অভিযুক্ত প্রসঙ্গে সুলতান আহমেদ জানান, তিনি তার মায়ের ওপর অত্যাচার করেন না। তার মা বাড়ির জমি অন্য সন্তানদের নামে লিখে দিয়েছেন। তার কিছু না দেয়ায় তিনি মায়ের বাড়িতে উঠেছেন। বাড়ি থেকে বের তাকে বের করে দেয়া হয়নি।

এ ব্যাপারে সুলতান আহমেদের বোন লাইলা বানু বলেন, আমার মায়ের তিন ছেলে। এর মধ্যে মা সুলতান আহমেদকে জমি না দিয়ে বিনিময়ে ১০ লাখ টাকা দিয়েছেন। জমি দিয়েছেন অন্য দু সন্তানকে। মা কারো প্রতি অন্যায় করেননি। বরং আমার ভাই সুলতান আহমেদ মায়ের কাছ থেকে ১০ লাখ টাকা নেয়ার পরও জমি দাবি করছেন। এখন মা আমার কাছে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা হিজলগাড়ি গ্রামে আছেন।

অপর এক মামলার বিবরণ সূত্রে জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গা শহরের সাদেক আলী মল্লিকপাড়ার হাশেম আলীর স্ত্রী আহিনূর বেগম গত ২১ অক্টোবর তার ছেলে শাহিন শেখ ও ছেলের বউ ময়না খাতুনের বিরুদ্ধে চুয়াডাঙ্গা আমলী আদালতে মামলা করেন। ওই মামলায় তার ছেলে ও ছেলের বউকে অভিযুক্ত করা হয়। এজাহারে বলা হয়, শাহিন শেখ মাদকাসক্ত। শাহিন শেখ তার মা আহিনুর বেগমকে মারধর করে বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছেন। ঘরে থাকা মায়ের ৫০ হাজার টাকার সাংসারিক জিনিসপত্র বিক্রি করে টাকা আত্মসাত করেছেন। এ মামলাতেও শাহিন শেখের বিরুদ্ধে আদালত থেকে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে। 

চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ওসি আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান জানান, ঘটনা দুটি খুবই অমানবিক। আজ নতুন করে থানায় একটি অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশি প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম