সোনালীতে সয়লাব খুলনা, দেশি মুরগির নামে প্রতারণা

সোনালীতে সয়লাব খুলনা, দেশি মুরগির নামে প্রতারণা

শরীফা খাতুন শিউলী, খুলনা ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:৩৭ ২১ অক্টোবর ২০২০  

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

খুলনায় বাজারে মুরগি কিনতে গিয়ে প্রতিনিয়ত প্রতারণার শিকার হচ্ছে মানুষ। দেশি মুরগির নামে ধরিয়ে দেয়া হচ্ছে পাকিস্তানি সোনালী মুরগি। দেখতে প্রায় একইরকম হওয়ায় ক্রেতারা না বুঝেই এসব মুরগি কিনছেন। সুযোগ বুঝে ব্যবসায়ীরাও মেতে উঠেছে প্রতারণায়।

অনুসন্ধানে দেখা গেছে, ক্রেতাদের দেখানোর জন্য একই খাঁচায় পাকিস্তানি ও দেশি মুরগি রাখে ব্যবসায়ীরা। এর মধ্যে অধিকাংশ পাকিস্তানি মুরগি, ২-১টা দেশি মুরগি থাকে। ক্রেতারা দেশি মুরগি দেখে পছন্দ করলে কৌশলে পাকিস্তানি মুরগি ধরিয়ে দেয় ব্যবসায়ীরা। এছাড়া অনেক খামারেও দেশি মুরগির নামে পালন করা হচ্ছে পাকিস্তানি সোনালী মুরগি। সেগুলোই আসে হাট-বাজারগুলোতে।

বাজার ঘুরে দেখা গেছে, সোনালী মুরগি বিক্রি হয় ১৮০ থেকে ২২০ টাকা কেজিতে। অন্যদিকে দেশি মুরগির দাম ৩৩০ থেকে ৩৮০ টাকা। কম দামে দেশি মুরগির প্রলোভনে পড়ে সোনালী মুরগি কিনে নিয়ে যাচ্ছেন ক্রেতারা।

কয়েকজন ব্যবসায়ীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, স্বাদের কারণে সব সময় দেশি মুরগির আলাদা চাহিদা থাকে। কিন্তু দেশি মুরগির উৎপাদন কম, দাম বেশি। অন্যদিকে, সোনালী মুরগির উৎপাদন বেশি, দাম কম। এ কারণে বাজারে সোনালি মুরগির আধিপত্য।

খুলনার গল্লামারী বাজারে দেশি মুরগি কিনতে এসেছেন আব্দুর রউফ। তিনি বলেন, অন্য বাজারের তুলনায় এখানে দেশি মুরগি পাওয়া সহজ। তাই এসেছি। তবে এখানেও অনেক সময় দেশি বলে সোনালি মুরগি ধরিয়ে দেয়া হয়। যা আগে টের পাওয়া যায় না। রান্নার পর বোঝা যায়।

গল্লামারী বাজারে দেশি মুরগি বিক্রেতা আব্দুল কুদ্দুস বলেন, এক শ্রেণির ব্যবসায়ী পাকিস্তানি সোনালী মুরগিকে দেশি বলে বিক্রি করছে। এতে দেশি মুরগির বাজার নষ্ট হচ্ছে। এ বিষয়ে বাজার মনিটরিং ও প্রতারকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া জরুরি।

ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর খুলনা জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক শিকদার শাহীনুর আলম বলেন, দেশি মুরগি বলে সোনালী মুরগি বিক্রির বিষয়টি আমাদের কানে এসেছে। কেউ প্রমাণ দিতে পারলে আমরা যথাযথ ব্যবস্থা নেব।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর