স্বামীর তৃতীয় বিয়ের প্রতিবাদ করায় দ্বিতীয় স্ত্রীর মুখে ছ্যাঁকা

স্বামীর তৃতীয় বিয়ের প্রতিবাদ করায় দ্বিতীয় স্ত্রীর মুখে ছ্যাঁকা

নেত্রকোনা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৩:৫৮ ২১ অক্টোবর ২০২০   আপডেট: ১৮:২১ ২১ অক্টোবর ২০২০

নির্যাতনের শিকার দ্বিতীয় স্ত্রী

নির্যাতনের শিকার দ্বিতীয় স্ত্রী

নেত্রকোনার বারহাট্টায় স্বামীর দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে আসায় প্রতিবাদ করায় প্রথম স্ত্রীর মুখে সিগারেটের ছ্যাঁকা দিয়েছে পাষণ্ড স্বামী। মঙ্গলবার নেত্রকোনার বারহাট্টা উপজেলার সিংধা ইউপির মল্লিকপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে বারহাট্টা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।

স্বামীর এমন অমানুষিক নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ মোহনগঞ্জ উপজেলার গাগলাজুর বরহাটি এলাকার আ. বারেক তালুকদারের মেয়ে। অভিযুক্ত মো. হাজিবুল মল্লিকপুর গ্রামের খুরশেদ মিয়ার ছেলে। 

গৃহবধূ মনি বলেন, হাজিবুল প্রথমে আমার বড় বোন নাসিমাকে বিয়ে করেন। তাদের দাম্পত্য জীবনে তিনটি সন্তান রেখে বড় বোন মারা যায়। পরে বোনের সন্তানদের দেখাশোনার কথা বিবেচনা করে ১১ বছর আগে বোন জামাইয়ের সঙ্গে অভিভাবকরা আমাকে বিয়ে দেন। তারপর থেকেই স্বামী কাজের জন্য ঢাকা চলে যায়। আমার তেমন খবর নিত না। আমি বেশির ভাগ সময় বাবার বাড়িতে থাকতাম। মাঝে মধ্যে বাড়ি আসতো সে। এরমধ্যে গত ৯ অক্টোবর সিজারে আমার একটি মেয়ে সন্তান হয়।

সিজারের খরচপাতিও বাবার বাড়ির লোকজন বহন করেছে। সে ঢাকায় নাকি গার্মেন্টসে কাজ করে। কয়েকদিন হয় বাড়ি এসেছে। কিন্তু সঙ্গে একটি মেয়ে নিয়ে আসে। প্রশ্ন করলে জানায় নতুন বউ। এ নিয়ে প্রতিবাদ করায় আমার ওপর শুরু করে নির্মম নির্যাতন। মঙ্গলবার সকালে আমাকে কিল ঘুষি শুরু করে। একপর্যায়ে সিজারের সেলাই করা পেটে লাথি মারলে রক্তক্ষরণ হয়। এতে ক্ষান্ত  না হয়ে পরে আবার সিগারেট দিয়ে আমার মুখে ছ্যাঁকা দেয়। আমার চিৎকারে আশপাশের স্থানীয়রা এগিয়ে এসে আমাকে উদ্ধার করে। পরে আমার ভাইকে খবর দিলে সে এসে হাসপাতালে নিয়ে যায়। 

ওই গৃহবধুর ফুফাতো ভাই নূরুজ্জামান কাঞ্চন জানান, বোনকে হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা দিয়ে নিয়ে আসা হয়েছে। এ ঘটনায় বারহাট্টা থানায় মামলা হয়েছে।

এ ব্যাপারে অ্যাডিশনাল এসপি (বারহাট্টা সার্কেল) সাইদুর রহমান বলেন, বিষয়টি তদন্ত করে অবশ্যই আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ/জেডএম