বিসিজি টিকা নেয়ার পর পরই শিশুর মৃত্যুর অভিযোগ

বিসিজি টিকা নেয়ার পর পরই শিশুর মৃত্যুর অভিযোগ

গাইবান্ধা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ০৪:২০ ২১ অক্টোবর ২০২০   আপডেট: ০৪:২৩ ২১ অক্টোবর ২০২০

বিসিজি টিকা নেয়ার পর পরই শিশুর মৃত্যুর অভিযোগ

বিসিজি টিকা নেয়ার পর পরই শিশুর মৃত্যুর অভিযোগ

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে যক্ষ্মা প্রতিরোধের বিসিজি টিকা দেয়ার পর ২২ দিন বয়সী এক কন্যা শিশুর মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় স্বাস্থ্য সহকারী লুচি বেগমকে অবরুদ্ধ করে রাখে শিশুর স্বজন ও এলাকাবাসী।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে স্বাস্থ্য সহকারী লুচিকে উদ্ধারে করে পুলিশ। স্বজনদের দাবি, মেয়াদোত্তীর্ণ টিকা দেয়ায় শিশুটি মারা গেছে।

মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার বামনডাঙ্গা ইউপি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। ২২ দিন বয়সী মোহসিনা আক্তার রুহানা বামনডাঙ্গা ইউপির জামাল গ্রামের আবদুর রহিম মিয়ার মেয়ে।

শিশুর স্বজনরা অভিযোগ করেন, দুপুরে শিশু মোহসিনাকে নিয়ে টিকা কেন্দ্রে যান তার দাদি। এ সময় স্বাস্থ্য পরীক্ষা না করেই শিশুটিকে যক্ষ্মা প্রতিরোধক একটি টিকা দেন স্বাস্থ্য সহকারী লুচি বেগম। এছাড়া শিশুটিকে মেয়াদ উত্তীর্ণ একাধিক বিসিজি টিকা দেন তিনি। এর আগে, লুচি বেগম শিশুটিকে মুখে ভিটামিন ক্যাপসুলের মতো কিছু খাওয়ান। টিকাদান শেষে বাড়িতে আনার পরপরই শিশুটির মুখ দিয়ে রক্ত পড়ে। পরে শিশুটিকে হাসপাতালে নেয়ার আগেই তার মৃত্যু হয়।

তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করছেন অভিযুক্ত স্বাস্থ্য সহকারী লুচি বেগম। তিনি বলেন, শিশুটিকে শুধু যক্ষ্মা প্রতিরোধক বিসিজি টিকা দেয়া হয়েছে। টিকাদানের আগে শিশুটির শারীরিক অবস্থা ভালো ছিল। অন্য শিশুদের মতো সঠিকভাবেই তাকে টিকা দেয়া হয়।

বামনডাঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান নাজমুল হুদা জানান, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে জানা গেছে টিকা নেয়ার ১৫ মিনিটের মধ্যে শিশুটি মারা গেছে। তিনি বলেন, টিকা না অন্য কারণে মারা গেল তা তদন্ত করা প্রয়োজন।

সুন্দরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আশরাফুজ্জামান সরকার জানান, বিসিজি টিকাটি শুধু যক্ষ্মা প্রতিরোধক। টিকা দেয়ার ফলে এখন পর্যন্ত কোনো শিশুর মৃত্যু হয়নি। শিশুটিকে দেয়া টিকার মেয়াদ ছিল ২০২১ সাল পর্যন্ত। টিকার কারণে তার মৃত্যুর ঘটনা ঘটেনি। তবে অন্য কোনো রোগে মৃত্যুর ঘটনা ঘটতে পারে। তবে পুরো বিষয়টি আরো তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। টিকাদানে কোনো অবহেলা থাকলে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সুন্দরগঞ্জ থানার ওসি আবদুল্লাহিল জামান জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে শিশুর স্বজন ও বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসীকে শান্ত করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম