কক্সবাজারে চার পৌরসভাসহ ৫৪ ইউপিতে শুরু হয়নি জন্মনিবন্ধন কার্যক্রম

কক্সবাজারে চার পৌরসভাসহ ৫৪ ইউপিতে শুরু হয়নি জন্মনিবন্ধন কার্যক্রম

কক্সবাজার প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ০২:৫৯ ২০ অক্টোবর ২০২০  

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

কাগজে কলমে খোলা থাকলেও বাস্তবে কক্সবাজার পৌরসভাসহ জেলা বেশির ভাগ ইউপিতে এখনো খোলা হয়নি জন্মনিবন্ধন কার্যক্রম। এতে এখনো দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন সাধারণ মানুষ। সচেতন মহলের দাবি জন্মনিবন্ধন কার্যক্রম কার্যক্রম শুরু হওয়ার খবরে আনন্দিত হয়ে সংশ্লিষ্ট পৌরসভা এবং ইউনিয়ন পরিষদে গেলে সেখানে বলা হচ্ছে এখনো শুরু হয়নি কার্যক্রম।

মূলত এখনো সার্ভার প্রস্তুত নয় বলে জানাচ্ছে কর্তৃপক্ষ। তবে কক্সবাজার পৌরসভা সহ বেশ কিছু জায়গায় জনপ্রতিনিধিদের জন্মনিবন্ধন আগে অনলাইন না করার কারণে কার্যক্রম শুরু করতে দেরি হচ্ছে বলে জানান প্রশাসন। অবশ্য সব কিছু দ্রুত শেষ করে জেলায় পুরোদমে জন্মনিবন্ধন কার্যক্রম শুরু হবে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসনের স্থানীয় সরকার শাখার উপ পরিচালক।

জন্ম নিবন্ধন কার্যক্রম শুরু হয়েছে জেনে কক্সবাজার পৌরসভা কার্যালয়ে এসেছিলেন টেকপাড়ার নজরুল ইসলাম। তিনি বলেন, আমি হতাশ হয়ে ফিরে যাচ্ছি এখানে জন্মনিবন্ধনের আবেদনই জমা নিচ্ছে না। সংশ্লিষ্ট কর্মচারীদের দাবি ঘোষণা দিলেও বাস্তবে এখনো শুরু হয়নি জন্মনিবন্ধন কার্যক্রম। তাই কোনো আবেদন গ্রহণ করা হচ্ছে না।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে এক কাউন্সিলার বলেন, আমার জানা মতে জন্মনিবন্ধন চালু করার জন্য পৌর মেয়র এবং কাউন্সিলারদের জন্মনিবন্ধন অনলাইনে থাকতে হবে। তাই তাদের আগে জন্মনিবন্ধন করতে হবে। আগে পৌর মেয়রের জন্ম নিবন্ধন ঝিলংজা ইউপি থেকে অনলাইনে করানো হলেও কোনো কাউন্সিলারের জন্মনিবন্ধন হয়নি। সেটা করার জন্য কাউন্সিলাদের প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র জমা দিতে বলা হলেও ১৬ জন কাউন্সিলারের মধ্যে মাত্র ৫ জন জমা দিয়েছেন বাকিরা এখনো দেননি। তাই আমি মনে করি জনপ্রতিনিধিদের কারণে পৌরসভার মানুষ কষ্ট পাচ্ছে।

এদিকে চকরিয়া পৌরসভার সচিব ছৈয়দুল হক (আজাদ) বলেন, চকরিয়া পৌরসভাতে এখনো জন্মনিবন্ধন কার্যক্রম শুরু হয়নি। এখনো আমাদের পাসওয়ার্ড দেয়া হয়নি বা সার্ভার ওপেন করা হয়নি। তাই মানুষের কাছ থেকে আবেদনও গ্রহণ করা হচ্ছে না। 

টেকনাফ পৌরসভার প্যানেল মেয়র আবদুল্লাহ মনির বলেন, প্রতিদিন অসংখ্য মানুষ আসে জন্মনিবন্ধন নিতে তবে এখনো সার্ভার না খোলায় করা যাচ্ছে না জন্মনিবন্ধন। মহেশখালী পৌরসভাতেও একই অবস্থা বলে জানা গেছে।

এদিকে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের স্থানীয় সরকার শাখায় গিয়ে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, জেলায় ৭১ ইউপি এবং ৪টি পৌরসভার মধ্যে শুধু মাত্র ১৭ টি ইউপিতে জন্মনিবন্ধন কার্যক্রম শুরু হয়েছে তাও সীমিত আকারে। যার মধ্যে সদর উপজেলায় ৮টি, রামুতে ৬টি, টেকনাফ উপজেলায় ১টি এবং উখিয়া উপজেলায় ২টি ইউপি। আর ৪টি পৌরসভার খোলার কথা থাকলেও কোথাও শুরু হয়নি জন্মনিবন্ধন কার্যক্রম।

এদিকে পিএমখালী ইউপিতে জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করা মো. ইউসুফ নামের একজন অভিভাবক বলেন, জন্মনিবন্ধন সনদ নেয়ার জন্য আবেদন করতে গিয়ে আমার কাছ থেকে ৮ ধরনের কাগজ পত্র নিয়েছে যা কোনো গ্রামের মানুষ জোগাড় করতে পারবে বলে আমার মনে হয় না। আর যেসব কাগজপত্রের কথা বলা হচ্ছে সেগুলো জোগাড় করতেও অনেক সময় লাগবে। তাই ঝামেলা এড়াতে অনেকে জন্মনিবন্ধন সনদ নিতে আগ্রহ হারাবে।

তিনি দাবি করেন বাবা-মায়ের আইডি বা পাসপোর্ট কপি নিয়ে সহজে জন্মনিবন্ধন সনদ দেয়া উচিত। 

এদিকে এখনো জন্ম নিবন্ধন কার্যক্রম শুরু না হওয়ার বিষয়ে জেলা প্রশাসনের স্থানীয় সরকার শাখার উপ পরিচালক শ্রাবস্তী রায় বলেন, কক্সবাজার পৌরসভাসহ ৪টি পৌরসভা এবং বেশ কিছু ইউপিতে এখনো জন্মনিবন্ধন কার্যক্রম শুরু যায়নি এটা সত্য। কিছু যান্ত্রিক সমস্যার কারণে এখনো জন্মনিবন্ধন কার্যক্রম পুরোপুরি শুরু করা যায়নি। আর সেখানে বেশ কিছু তথ্য আগে থেকে আপলোড করতে হয় সেখানেও এখনো ঘাটতি আছে। আশা করছি আগামী সপ্তাহের মধ্য সব কিছুই ঠিক হয়ে যাবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ