জাতীয় সংগীত বিকৃত করায় মাদরাসার কার্যক্রম বন্ধ

জাতীয় সংগীত বিকৃত করায় মাদরাসার কার্যক্রম বন্ধ

কুমিল্লা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১১:১৬ ১৯ অক্টোবর ২০২০   আপডেট: ১১:১৭ ১৯ অক্টোবর ২০২০

জাতীয় সংগীতের সুর দিয়ে হামদ পরিবেশন করায় মাদরাসার কার্যক্রম বন্ধ

জাতীয় সংগীতের সুর দিয়ে হামদ পরিবেশন করায় মাদরাসার কার্যক্রম বন্ধ

জাতীয় সংগীতের সুর দিয়ে হামদ পরিবেশনের অভিযোগে কুমিল্লার মুরাদনগরের একটি মাদরাসার কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। রোববার উপজেলার সিদ্ধেশ্বরী এলাকার দারুল কোরআন আল আরাবিয়া মাদরাসার কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়া হয়। এ সময় কাগজপত্র এবং অনুমোদন নিয়ে ওই মাদরাসা চালু করার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়।

জানা যায়, উপজেলার সিদ্ধেশ্বরী দারুল কোরআন আল আরাবিয়া মাদ্রাসার মুহতামিম নাজিবুল্লাহ আফসারী জাতীয় সংগীতের সুর ব্যবহার করে একটি ইসলামি সংগীত পরিবেশনা করে তার নিজস্ব ফেসবুক এবং ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করেন। এতে বিষয়টি কপি রাইট কর্তৃপক্ষসহ গণমাধ্যম এবং স্থানীয় প্রশাসনের দৃষ্টিগোচর হয়।

রোববার খবর পেয়ে মুরাদনগর ইউএনও অভিষেক দাস এবং ওসি নাহিদ আহাম্মেদ ঘটনাস্থলে যান। তবে ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযুক্ত ওই শিক্ষককে পাওয়া যায়নি। এ সময় মাদরাসা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা সাপেক্ষে কার্যক্রম সাময়িক বন্ধ রাখার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়।

এ ছাড়া ওই শিক্ষককে তার ফেসবুক আইডিসহ ইউটিউব চ্যানেল থেকে ওই সুরে গাওয়া সংগীতটি মুছে ফেলার জন্য নির্দেশ প্রদান করা হয়।

এক মাস ১৮ দিন আগে ওই মাদ্রাসার কার্যক্রম শুরু করে মসজিদ কমিটি। এ বিষয়ে মাদ্রাসার মুহতামিম নাজিবুল্লাহ আফসারীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা হলে তিনি বলেন, আসলে বিষয়টি এমন হবে তা আমার জানা ছিল না। আমি আমার ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট থেকে সবকিছু ফেলে দিয়েছি এবং একটি ভিডিও বার্তা সামাজিক মাধ্যমে দিয়ে এ বিষয়টির জন্য দেশবাসীর কাছে ক্ষমা চাইবো।
 
এ বিষয়ে মুরাদনগরের ইউএনও অভিষেক দাস বলেন, জাতীয় সংগীতের সুর ব্যবহার করে ওই মাদরাসার মুহতামিম শিক্ষার্থীদের নিয়ে একটি ইসলামি সংগীত পরিবেশন করে ফেসবুক এবং ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করেন, যা কপিরাইট আইনের সুস্পষ্ট লংঘন। বিষয়টি নিয়ে কী ধরনের ব্যবস্থা নেয়া যায় তা নিয়ে আমরা চিন্তাভাবনা করছি। মাদরাসা প্রতিষ্ঠার যথাযথ কাগজপত্র না থাকায় আপাতত সেটির কার্যক্রম বন্ধ রাখার জন্য নির্দেশ দিয়েছি।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএস