বগুড়া বিএনপিতে কমিটি নিয়ে দ্বন্দ্ব চলছেই

বগুড়া বিএনপিতে কমিটি নিয়ে দ্বন্দ্ব চলছেই

বগুড়া প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:২৪ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৭:১৭ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০

বগুড়া জেলা বিএনপির কার্যালয়

বগুড়া জেলা বিএনপির কার্যালয়

বিএনপির আঁতুড়ঘর হিসেবে পরিচিত বগুড়ায় চার মাস আগে গঠিত কমিটি নিয়ে অন্তর্দ্বন্দ্ব চলছেই। কমিটিতে ত্যাগী ও পরীক্ষিতদের বাদ দেয়ায় একাধিক গ্রুপে বিভক্ত হয়ে পড়েছে নেতা-কর্মীরা। মে মাসে কমিটি ঘোষণার পর বারবার জেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ ও তালা লাগানো হয়েছে।

জানা গেছে, বিতর্কিত নেতা-কর্মীদের নিয়ে জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করা হয় ১৫ মে। এ ঘটনায় দেখা দেয় বিরূপ প্রতিক্রিয়া। ওই রাতে দুই গ্রুপে বিভক্ত হয়ে কার্যালয়ে তালা দিয়ে বিক্ষোভ, ভাঙচুর ও কুশপুত্তলিকা দাহ করে পদবঞ্চিত নেতা-কর্মীরা। পরে আহ্বায়ক কমিটির সদস্য হেলালুজ্জামান তালুকদার লালুর পরামর্শে বর্তমান কমিটির নেতা-কর্মীরা তালা ভেঙে কার্যালয়ে প্রবেশ করে।

এর আগে, ২৫ এপ্রিল বগুড়া বিএনপির কমিটি গঠন সম্পর্কে কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-সভাপতি বরকতউল্লাহ বুলু, সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, সহ-সম্পাদক শাহীন শওকত ও সদস্য ওবাইদুর রহমান চন্দনের সঙ্গে মতবিনিময় করেন জেলা বিএনপির নেতারা। ওই সময় আগের কমিটি বহাল রাখার প্রস্তাব দেন জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক পরিমল চন্দ্র এবং প্রকাশনা সম্পাদক মেহেদী হাসান হিমু। পরে এ নিয়ে কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন তারা। এরপরই তাদের বহিষ্কার করা হয়। দুই নেতাকে বহিষ্কারের খবর বগুড়ায় ছড়িয়ে পড়তেই জেলা বিএনপি কার্যালয়ে তালা লাগিয়ে বিক্ষোভ করে নেতা-কর্মীরা। পরদিন কেন্দ্রীয় কমিটির নির্দেশে আবার কার্যক্রম শুরু হয়।

২৯ এপ্রিল কমিটি গঠনের লক্ষ্যে বর্ধিত সভা ডাকা হয়। সভায় ভিপি সাইফুল ইসলাম ও হেলালুজ্জামান লালুর অনুসারীরা দুটি নামের তালিকা জমা দেয়। ১৫ মে কেন্দ্রীয় কমিটি থেকে ৩১ সদস্যের জেলা কমিটি ঘোষণা করা হয়। কমিটিতে নিজেদের অনেক নেতা-কর্মীর নাম না পেয়ে কার্যালয়ে তালা দিয়ে বিক্ষোভ ও ভাঙচুর চালায় ভিপি সাইফুল ইসলামের অনুসারীরা।

ওই ঘটনায় পৌর কাউন্সিলর দেলোয়ার হোসেন পসারি হিরু, জেলা বিএনপির তাঁতী বিষয়ক সম্পাদক তৌহিদুল ইসলাম বিটু, জেলা ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি আবু জাফর জেমস ও সাংগঠনিক সম্পাদক রবিউল ইসলাম আউয়ালের প্রাথমিক সদস্য পদসহ সব পদ স্থগিত করা হয়।

বগুড়া বিএনপির আহ্বায়ক গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ বলেন, কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তে আহ্বায়ক কমিটি হয়েছে। কমিটি নিয়ে মতপার্থক্য থাকতেই পারে। এ বিষয়ে কারো অভিযোগ থাকলে কেন্দ্রীয় কমিটিতে জানাতে পারে। তা না করে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করা হয়েছে। এ কারণে চারজনের প্রাথমিক সদস্যপদসহ সব পদ স্থগিত করেছে কেন্দ্রীয় কমিটি।

বগুড়া বিএনপির সাবেক সভাপতি ও আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ভিপি সাইফুল ইসলামের সঙ্গে একাধিকবার চেষ্টা করেও যোগাযোগ করা যায়নি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর/এইচএন