গাংনীতে পানিবন্দি অর্ধশত পরিবার

গাংনীতে পানিবন্দি অর্ধশত পরিবার

মেহেরপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৫:২৩ ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০  

পানিবন্দি মানুষের ভোগান্তি

পানিবন্দি মানুষের ভোগান্তি

টানা আড়াইমাস ধরে পানিবন্দি জীবনযাপন করছেন মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার বামন্দী দাশপাড়া এলাকার প্রায় অর্ধশত পরিবার। দীর্ঘদিনের জলাবদ্ধতার কারণে বর্তমানে ওই এলাকার পরিবারগুলোর মধ্যে হাহাকার সৃষ্টি হয়েছে। বিশুদ্ধ খাবার পানি সংকটসহ অভাব অনটনে কাটছে ওই এলাকার দাশ পরিবারগুলো। স্থানীয় ইউপিতে ধরনা দিয়েও কোনো সমাধান পাননি অসহায় পানিবন্দি এসব মানুষ।

দীর্ঘ সময় পানিবন্দি থাকায় নানা ধরনের রোগ ব্যাধিতে আক্রান্ত হচ্ছে শিশু, বৃদ্ধরা ও নারীসহ স্থানীয়রা। বিশেষ করে বৃদ্ধা-নারী-শিশু, গবাদি পশু গরু, ছাগল, মুরগি ও ছোট ছেলে মেয়েদের চলাফেরা খেলাধুলা বন্ধ হয়ে পড়েছে। সাপ ও পানিজাত পোকা বাড়িতে উঠে আসছে। সবমিলে মানুষের দুর্ভোগ প্রকট আকার ধারণ করেছে।

গৃহবধু রুপালী দাশ বলেন, আড়াই মাস ধরে আমরা পানিবন্দি জীবনযাপন করছি। আমাদের উঠানে হাটু পর্যন্ত পানি জমেছে। ভয়ে ঘরে থাকতে পারছি না। এলাকার পানি খাওয়া টিউবওয়েলগুলো পানির মধ্যে ডুবে যাওয়ায় সংকট দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ পানির। আমরা নিম্ন আয়ের মানুষ। 

বিমল দাশ ও মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী রওশানার খাতুন বলেন, আমরা প্রায় আড়াই মাস ধরে পানিবন্দি জীবনযাপন করলেও এখন পর্যন্ত স্থানীয় জনপ্রতিনিধি বা উপজেলা প্রশাসনের কেউ খোঁজ নেননি। মেম্বারের কাছে গিয়েও কোনো সুরাহা হয়নি। আমরা এখন নিজ বাড়ি ঘর ছেড়ে রাস্তার পাশে বসবাস করছি। এমনিতে করোনার কারণে আমরা ৪-৫ মাস ঘরে বসে আছি। এরপর আবার পানিবন্দি জীবন। অসহ্য হয়ে উঠেছে এ এলাকার অর্ধশত পরিবারের শতাধিক মানুষের জীবন। বিশেষ করে শিশু ও বৃদ্ধদের অবস্থা শোচনীয়।

স্থানীয় গৃহবধূ রেশমা রেজা বলেন, আর সামান্য পানি জমলেই আমাদের ঘরের মধ্যে পানি ঢুকে যাবে। ছোট শিশুকে নিয়ে সাপ পোকা মাকড়ের আতঙ্ক নিয়ে বসবাস করছি।

স্থানীয় বামন্দী ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম বলেন, আমি মেম্বারের মাধ্যমে খোঁজ নিয়েছি। তবে এ মুহূর্তে কোনো কিছুই করা সম্ভব হচ্ছে না। আরো কয়েকদিন অপেক্ষা করতে হবে। প্রাকৃতিকভাবেই পানি শুকিয়ে যাবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ