সোনার বার গলিয়ে ব্যাগে সেলাই, তবুও শেষ রক্ষা হলো না

সোনার বার গলিয়ে ব্যাগে সেলাই, তবুও শেষ রক্ষা হলো না

চট্টগ্রাম মহানগর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২৩:৫৪ ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ০৪:০৫ ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০

উদ্ধার হওয়া সোনার তার

উদ্ধার হওয়া সোনার তার

বিমানবন্দর দিয়ে নানা সময় বিভিন্ন উপায়ে সোনা চোরাচালানের ঘটনা ঘটে। তবে শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ঘটলো ভিন্ন ঘটনা। সোনা পাচারে সম্পূর্ণ এক ভিন্ন কায়দা অবলম্বন করেছে পাচারকারীরা, যেন শুল্ককর ফাঁকি দেয়া যায়। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি।

মঙ্গলবার শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে দুবাই থেকে আসা বিমান বাংলাদেশ এয়ালাইন্সের বিজি ১৪৮ ফ্লাইটের যাত্রী জাফর আলমের ব্যাগ তল্লাশি করে এই ‘অভিনব’ অপচেষ্টার বিষয়ে জেনেছেন কাস্টমস কর্মকর্তারা।

আটক যাত্রী জাফর আলমের গ্রামের বাড়ি চট্টগ্রামের ফটিকছড়িতে।

আরো পড়ুন: সাপের ছোবল খেয়েও আজান দিয়ে নামাজ পড়ান ইমাম, অতঃপর...

এ বিষয়ে চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউসের ডেপুটি কমিশনার রোকসানা খাতুন জানান, জাফর আলম নামে এই ব্যক্তি দুটি সোনার বার গলিয়ে ব্যাগের ক্যাবলের মতো করে সেলাই করে দিয়েছিলেন। যেন প্রথম দেখাতেই যে কেউ তারগুলোকে ব্যাগের অংশ মনে করে।

তিনি জানান, প্রাথমিক তল্লাশিতে ব্যাগে কিছু পাওয়া না গেলেও খালি ব্যাগটি স্ক্যানিং মেশিনে ঢোকানো হলে ধাতব পদার্থ থাকার সংকেত আসতে থাকে। পরে ব্যাগ কেটে চিকন সুঁতার মতো করে গলানো সোনা উদ্ধার করা হয়। তার হিসেবে আনা ওই সোনার বারের ওজন ২৩৪ গ্রাম। এ ঘটনায় জরিমানাসহ শুল্ককর আদায়ের প্রক্রিয়া চলছে।

অপরদিকে, একইদিন দুবাই থেকে আসা ফ্লাইট এফজেড ৫৮৯ ফ্লাইটের যাত্রী ফটিকছড়ির মো. সাহেদুল আলমের কাছ থেকে ১২৪ কার্টুন, মো. বখতেয়ার উদ্দিনের কাছ থেকে ৯০ কার্টুন, হাটহাজারীর মিয়া আলমের কাছ থেকে ১২০ কার্টুন সিগারেট জব্দ করা হয়েছে বলেও জানান এ কাস্টমস কর্মকর্তা।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম