মসজিদের বিদ্যুৎ সংযোগ অবৈধ ছিল: মিস্ত্রি মোবারকের স্বীকারোক্তি

মসজিদের বিদ্যুৎ সংযোগ অবৈধ ছিল: মিস্ত্রি মোবারকের স্বীকারোক্তি

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৯:৩৭ ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০  

জবানবন্দি শেষে কারাগারেই পাঠানো হয় বৈদ্যুতিক মিস্ত্রী মোবারক হোসেনকে

জবানবন্দি শেষে কারাগারেই পাঠানো হয় বৈদ্যুতিক মিস্ত্রী মোবারক হোসেনকে

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার পশ্চিম তল্লা বাইতুস সালাম জামে মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় সিআইডির হাতে গ্রেফতার বৈদ্যুতিক মিস্ত্রী মোবারক হোসেন আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। বিদ্যুৎ সংযোগ অবৈধ ছিল বলে স্বীকার করেছেন তিনি।

মঙ্গলবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কাওসার আলমের আদালতে তার জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন আদালত পুলিশের পরিদর্শক আসাদুজ্জামান।

তিনি জানান, পশ্চিম তল্লা বাইতুস সালাম জামে মসজিদের বিদ্যুৎ সংযোগ অবৈধ ছিল- এ তথ্য স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন বৈদ্যুতিক মিস্ত্রী মোবারক হোসেন। জবানবন্দি শেষে আসামিপক্ষের আইনজীবী তার জামিন আবেদন করলে বিচারক জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

নারায়ণগঞ্জ সিআইডির পরিদর্শক বাবুল হোসেন জানান, মসজিদের বিদ্যুৎ সংযোগ অবৈধ ছিল। বৈদ্যুতিক তারে স্পার্ক হয়ে জমে থাকা গ্যাসের সঙ্গে মিশে যায়। এ কারণেই বিস্ফোরণ ঘটে। অবৈধ সংযোগ দিয়েছিল মোবারক হোসেন। আদালতে জবানবন্দিতে সে দোষ স্বীকার করেছে।

এর আগে, মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় মামলায় রোববার সকালে পশ্চিম তল্লা এলাকা থেকে মোবারক হোসেনকে গ্রেফতার করে সিআইডি। পরে তাকে দুই দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়। রিমান্ড শেষে মঙ্গলবার বিকেলে পুনরায় তাকে আদালতে হাজির করে সিআইডি। এ সময় মসজিদের বিদ্যুৎ সংযোগ অবৈধ স্বীকার করে জবানবন্দি দেন।

৪ সেপ্টেম্বর রাতে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার পশ্চিম তল্লা বাইতুস সালাম জামে মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় ৩৭ জন দগ্ধ হন। তাদের মধ্যে এখন পর্যন্ত ৩৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এখনো ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইনস্টিটিউটের আইসিইউতে আশঙ্কাজনক অবস্থায় রয়েছেন দুই জন। এছাড়া বেঁচে ফিরেছেন মাত্র একজন। এবিস্ফোরণের পরদিন অজ্ঞাতদের বিরুদ্ধে মামলা করে পুলিশ। পরবর্তীতে মামলার তদন্তভার হস্তান্তর করা হয় সিআইডিতে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর