লকডাউনেও এক হতে পারেনি গাজীপুর বিএনপি

লকডাউনেও এক হতে পারেনি গাজীপুর বিএনপি

গাজীপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৭:০১ ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৮:০৫ ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

গাজীপুরে দীর্ঘদিন ধরেই দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে আছে বিএনপি। এক ভাগের নেতৃত্ব দিচ্ছেন জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি অধ্যাপক এমএ মান্নান। আরেক ভাগের নেতৃত্বে আছেন মহানগর বিএনপির সভাপতি হাসান উদ্দিন সরকার।

অভ্যন্তরীণ কোন্দলে দলটির নেতা-কর্মীরা সব ধরনের কর্মকাণ্ড থেকে নিজেদের গুটিয়ে রেখেছে। দ্বন্দ্ব-কোন্দল ভুলে করোনা মহামারির লকডাউনেও এক হতে পারেনি তারা।

অধ্যাপক এমএ মান্নান অসুস্থতার কারণে দলীয় কর্মকাণ্ডে অংশ না নিলেও তার অনুসারীরা হাসান উদ্দিনের বিরোধিতা করে কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে। এর পেছনে মূল ভূমিকা রাখছেন হাসান সরকারের চাচাতো ভাই ও শ্রমিক দলের কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যকরি সভাপতি সালাউদ্দিন সরকার। এতে দলীয় কোন্দল প্রকাশ্যে রূপ নিয়েছে।

করোনা মহামারিতে কেন্দ্রীয় নেতাদের একজন দুই গ্রুপের পক্ষে গাজীপুরে ত্রাণ বিতরণ করলেও জেলা কিংবা মহানগর বিএনপির কোনো রাজনৈতিক তৎপরতা চোখে পড়েনি। এমনকি দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকীও দুইবার পালন করেছে গাজীপুর মহানগর বিএনপি। সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডে দেখা যায়নি বিএনপির অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীদেরও।

গাজীপুর বিএনপির দীর্ঘদিনের এই গ্রুপিং-বিভেদ করোনার লকডাউনেও মীমাংসা হয়নি। এক হতে পারেননি নেতা-কর্মীরা। নেতারা বলেন, কোন্দলের কারণে কর্মসূচি পালনে কর্মীরা এগিয়ে আসে না।

গাজীপুর মহানগর বিএনপির সভাপতি হাসান উদ্দিন সরকার জানান, মহানগর বিএনপিতে কোনো গ্রুপিং নেই। কমিটি নিয়ে সামান্য ভুল বোঝাবুঝি রয়েছে। যা অচিরেই সমাধান হয়ে যাবে। তবে জেলা বিএনপির নেতা-কর্মীরা বিভিন্ন কারণে সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডে সক্রিয় হতে পারছে না।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর/এইচএন