পাথরঘাটায় ধর্ষণের ভয় দেখিয়ে মুখ বেঁধে ডাকাতি

পাথরঘাটায় ধর্ষণের ভয় দেখিয়ে মুখ বেঁধে ডাকাতি

পাথরঘাটা (বরগুনা) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১২:০১ ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ১২:২১ ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০

ডাকাতদের তাণ্ডবে তছনছ হয় পুরো বাড়ি

ডাকাতদের তাণ্ডবে তছনছ হয় পুরো বাড়ি

বরগুনার পাথরঘাটায় ধর্ষণের ভয় দেখিয়ে হাত-পা, মুখ বেঁধে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। ডাকাতরা ১০ লাখ টাকা ও ১৫ ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও মূল্যবান মালামাল নিয়ে গেছে।

বুধবার গভীর রাতে ওই উপজেলার কাকচিড়া ইউপির দক্ষিণ কাকচিড়া গ্রামের বাদল মোক্তারের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন বাদল মোক্তারের স্ত্রী। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জাবির হোসেন জানান, রাতে স্ত্রী জেসমিন আক্তার ও ছেলে সিনাকে নিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন বাদল মোক্তার। রাত দুইটার দিকে বারান্দার গ্রিলের তালা ভেঙে ডাকাতদের ঘরে প্রবেশের বিষয়টি টের পান তিনি। তখন স্ত্রীর সহায়তায় এক ডাকাতকে জাপটে ধরেন। এরইমধ্যে পেছন থেকে আরো ৫-৬ জন ডাকাত ঘরে ঢুকে অস্ত্রের মুখে সবার হাত-পা বেঁধে বেঁধে ফেলে। পরে জেসমিন আক্তারকে পাশের ঘরে নিয়ে ধর্ষণের ভয় দেখিয়ে মূল্যবান সামগ্রীর সন্ধান চায়। ওই সময় তাদের মারধরও করে ডাকতরা।

অ্যাডভোকেট জাবির আরো জানান, প্রায় দেড় ঘণ্টা তাণ্ডব চালিয়ে ঘরের মূল্যবান আসবাবর ভাঙচুর করে ১০ লাখ টাকা ও ১৫ ভরি স্বর্ণালংকার নিয়ে যায় ডাকাতরা। ডাকাতদের কাউকে চিনতে পারেননি বাদল মোক্তার কিংবা তার পরিবার।

পাথরঘাটা থানার ওসি (তদন্ত) মোহাম্মদ সাঈদ বলেন, খবর পেয়েই আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। এর আগেও পাথরঘাটায় ঠাকুরঘরের সিন্দুক ভেঙে ডাকাতি হয়েছে। ওই ঘটনায় ডাকাতি হওয়া টাকা ও স্বর্ণালংকার উদ্ধার ও ডাকাত চক্রকে আটক করেছি। এবারও তদন্ত করে ঘটনার রহস্য উদঘাটন ও ডাকাতচক্রকে আটক করা হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর