৪০০ বছর আগের মহামারি, ভুয়া ওষুধে মৃত্যুর হার ছিল তারও বেশি

৪০০ বছর আগের মহামারি, ভুয়া ওষুধে মৃত্যুর হার ছিল তারও বেশি

সাতরঙ ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৪:৫০ ১৬ জুলাই ২০২১   আপডেট: ১৫:০২ ১৬ জুলাই ২০২১

৪০০ বছর আগে প্লেগে দিনে ২০ হাজার মানুষ মারা গিয়েছে ইতালিতে

৪০০ বছর আগে প্লেগে দিনে ২০ হাজার মানুষ মারা গিয়েছে ইতালিতে

প্রতি শতাব্দীতেই মহামারিতে নাকাল হয়েছে বিশ্ব। প্লেগ, কালাজ্বর, স্প্যানিশ ফ্লুতে মারা গিয়েছে হাজার হাজার মানুষ। ভেঙে পড়েছিল অর্থনৈতিক অবস্থা। যার রেশ কাটতে সময় লেগেছে মহামারিতে আক্রান্ত দেশগুলোর। এখনো অনেক রোগের প্রতিষেধক পর্যন্ত আবিষ্কার করা যায়নি। দুই হাজার বছর আগেও এমন ভয়ঙ্কর মহামারির রূপ দেখেছে রোমান সাম্রাজ্য। তবে ৪০০ বছর আগে যে মহামারি দেখা দিয়েছিল সেসময় কিছু অসাধু মানুষ এর সুযোগ নিয়েছিল। নিজেদের আখের গোছাতে গিয়ে বহু মানুষকে বিপদের ফেলেছে নকল ওষুধ দিয়ে। 

১৬৬৪ খ্রিস্টাব্দের শীতের সময়, লন্ডনে এক উজ্জ্বল ধুমকেতু দেখা গেল। যেমন বিশাল তার মুণ্ড, তেমনি ঝাঁটার মতো লেজ। শহরের লোক আতঙ্কে ক্রুশ চিহ্ন আঁকতে লাগল বুকে। সব জায়গায় একই আলোচনা। সবাই বলতে লাগল এইবার ভয়ঙ্কর কিছু ঘটতে চলেছে। বাইবেলের বলা সেই ভয়ঙ্কর প্রলয়ই বুঝি আসতে চলেছে। 

মানুষ রাস্তাঘাটে মরে পড়ে থাকত, সতকার করারও কেউ ছিল না ভারতে তখন বাদশা ঔরঙ্গজেবের রাজত্ব। মোগল সাম্রাজ্য উঠেছে উন্নতির শীর্ষে। সেই সঙ্গে সাম্রাজ্যে ভাঙনের ইঙ্গিতও দেখা যাচ্ছে। এই সময় দিল্লি, আগ্রা, কানপুর, লখনউ অথবা মুর্শিদাবাদ ছিল লন্ডনের চেয়ে অনেক বড় শহর। আয়তন, লোকসংখ্যা বা নাগরিক স্বাচ্ছন্দ্যের দিক থেকে ভারতের মহানগরীগুলোর কাছে দাঁড়াতেই পারত না লন্ডন। ব্রিটিশদের রাজধানীর আয়তন ছিল মাত্র ৪৪৮ একর। তার পূর্ব, পশ্চিম আর উত্তর দিক ছিল দেওয়াল দিয়ে ঘেরা। দক্ষিণে ছিল টেমস নদী। ওই ঘেরা অংশের ভেতরে থাকতে লন্ডনের জেন্টলম্যানরা। গরিবদের বস্তি ছিল দেয়ালের বাইরে। শহরে জঞ্জাল সাফাই হত কালেভদ্রে। রাস্তার দু'পাশে উপচে পড়ত খোলা ড্রেন। যত্রতত্র স্তূপ হয়ে থাকত জঞ্জাল। 

১৬৬৪ সালের শেষদিকে যখন সেই ধুমকেতু দেখা দিল, তখন লন্ডন শহরের বাস করত ড্যানিয়েল ডিফো নামে এক বালক। তার বয়স তখন চার। তাদের বাড়ি ছিল ফোর স্ট্রিট নামে একটা রাস্তার ধারে। তার বাবা জেমস ফো ছিলেন শহরের নামজাদা কসাই। ধনী পরিবারের সন্তান হিসেবে ডিফোর জীবন আরামেই কাটার কথা ছিল, কিন্তু কাটেনি। তার যখন পাঁচ বছর বয়স, তখন লন্ডনে দেখা যায় ভয়াল প্লেগ মহামারি। তার দু'বছর বাদে শহরে হানা দেয় ডাচ দস্যুরা। ডিফোর যখন ১০ বছর বয়স, তখন তার মা দেহরক্ষা করেন। 

 `রবিনসন ক্রুশো`-র স্রষ্টা ডেনিয়েল ডিফো তখন পাঁচ বছরের শিশু যৌবনে ডিফো ছিলেন উচ্চাকাঙ্ক্ষী। বিপুল অর্থ উপার্জন করেছেন। বিলাসে-ব্যসনে সব উড়িয়েও দিয়েছেন। অত্যন্ত অভিজাত পরিবারের কন্যাকে বিবাহ করেছিলেন। বরপণ হিসাবে পেয়েছিলেন বিপুল অর্থ। একসময় সরকারের খুব প্রিয়পাত্র ছিলেন। পরে রাজদ্রোহের দায়ে পড়েছেন। পাওনাদারের ঋণ শোধ করতে না পেরে জেলে গিয়েছিলেন। শেষ বয়সটা খুব কষ্টে কেটেছিল তার। জীবনের এইসব ওঠাপড়ার মধ্যে চালিয়ে গিয়েছেন লেখালিখি। 

মৃত্যুর ৪০০ বছর বাদেও তিনি অমর হয়ে আছেন 'রবিনসন ক্রুশো'-র স্রষ্টা হিসেবে। এই উপন্যাসটি পৃথিবীর প্রায় সব ভাষায় অনুবাদ হয়েছে। তার আর একটি অল্প পরিচিত বই আছে। তার নাম 'জার্নাল অব দ্য প্লেগ ইয়ার'। ১৬৬৪ সালে সেই যে উজ্জ্বল ধুমকেতু দেখা গিয়েছিল, তার কয়েক মাসের মধ্যেই লন্ডনে শুরু হয় প্লেগ মহামারি। শহরে ৭০ হাজারের বেশি মানুষ মারা যান। সেই মহামারি নিয়ে ডিফোর বই প্রকাশিত হয় ১৭২২ সালে। প্লেগের সময় কী ঘটেছিল, তার বিস্তারিত বর্ণনা দেওয়া আছে তাতে। 

পুরসভার ওয়াচম্যানরা রোজ প্রতিটি বাড়িতে উঁকি দিয়ে দেখত কেউ মারা গেছে কিনা, তাহলে ডেড কার্ট আসত মরা বাড়ির সামনে মহামারির সময় ডিফোর বয়স ছিল মাত্র পাঁচ। তার পক্ষে কি অত মনে রাখা সম্ভব? এই নিয়ে অনেকে সন্দেহ প্রকাশ করতেন। পরে জানা যায়, ডিফো বড় হয়ে তার চাচার কাছে শুনেছিলেন মহামারির গল্প। ডিফোর চাচা হেনরি ফোবাস করতেন ইস্ট লন্ডনের হোয়াইট চ্যাপেল এলাকায়। তিনি মহামারির সময় রাতে লন্ডনের পথে পথে ঘুরে বেড়াতেন। 

'৬৪ সালেই লন্ডনে শোনা গেল, আমস্টারডাম ও রটারডামে প্লেগ শুরু হয়েছে। '৬৫-র শুরুতে রোগ এসে হাজির হল লন্ডনের দোরগোড়ায়। শুরুতে শহরের পাঁচিলের বাইরে গরিবদের বস্তিতে শুরু হল মহামারি। রোজ কবরস্থানে আগের চেয়ে বেশি মৃতদেহ সমাধি দেওয়া হতে লাগল। হেনরি ফো হিসাব রাখতেন, কবে কোন সমাধিক্ষেত্রে কয়টা লাশ আনা হয়েছিল। তা থেকে আন্দাজ করা যেত, কীভাবে ছড়াচ্ছে প্লেগ। 

কবরস্থানে বিরাট বিরাট ট্রেঞ্চ খোঁড়া হয়েছিল, তাতে গাদা করে ফেলে দেওয়া হত মৃতদেহপ্লেগ রুখতে পুরসভা জারি করেছিল লকডাউন। লন্ডন পরিণত হয় ভুতুড়ে শহরে। বাজার-হাট বন্ধ। ধনীরা আগেভাগে পালিয়ে গিয়েছে শহর ছেড়ে। প্রতিটি বাড়ির বাইরে তালা দিয়ে গিয়েছে পুরসভার লোক। কেউ যাতে বাইরে বেরোতে না পারে, সেজন্য ওই ব্যবস্থা। রাস্তার মোড়ে মোড়ে দাঁড়িয়ে আছে ওয়াচম্যান। রাতের অন্ধকারে লুকিয়ে শহরের পথ দিয়ে হাঁটতে হাঁটতে হেনরি ফো শুনেছেন, বাড়িগুলোর ভেতর থেকে ভেসে আসছে নারী ও শিশুদের আর্তনাদ। তার মানে সেই বাড়িতে হানা দিয়েছে প্লেগ। কেউ হয়তো মারা পড়েছে। কোনো কোনো বাড়ি একেবারে নিশ্চুপ। সেখানে সকলেই মারা গিয়েছে। 

পুরসভার ওয়াচম্যানরা রোজ প্রতিটি বাড়িতে উঁকি দিয়ে দেখত। কেউ মারা গিয়েছে জানলে ঘড়ঘড় শব্দে আসত ডেড কার্ট। মৃতদেহ বহন করার গাড়ি। কবরস্থানে বিরাট বিরাট ট্রেঞ্চ খোঁড়া হয়েছিল। তাতে গাদা করে ফেলে দেওয়া হত মৃতদেহ। পুরসভা নির্দেশ দিয়েছিল, প্রতিটি মৃতদেহকে অন্তত মাটির ছ'ফুট নীচে কবর দিতে হবে। নইলে রোগ ছড়ানোর সম্ভাবনা। হেনরি ফো বলেছেন, একসময় মৃত্যুভয়ে মানুষ পাগল হয়ে উঠল। ভালোমন্দ বোধ লোপ পেল। অনেকে পুরসভার পাহারাদারদের মেরেধরে বেরিয়ে পড়ল রাস্তায়। এই সুযোগে পোয়া বারো হল প্রতারকদের। ভয়ে মানুষ বুদ্ধিসুদ্ধি হারিয়ে ফেলেছে। তাদের ঠকানো সবচেয়ে সোজা। গোটা শহর প্লেগের নানা 'ওষুধ'-এ ছেয়ে গেল। কেউ বেচতে লাগল পিল। কেউ বা বেচত 'রহস্যময় দ্রবণ'। 

মানুষ মহামারিতে পাগল হয়ে যায় প্রতিষেধকের জন্য, ছুটতে থাকে জাদুবিদ্যার দিকে একদল লোক বলত, তারা ডাইনিবিদ্যার চর্চা করে এইসব ওষুধ শিখে এসেছে। ওষুধে আছে অল্প মাত্রার বিষ। সেই বিষ শরীরে প্রবেশ করলে পরে প্লেগের জীবাণু আর কিছু করতে পারবে না। শরীরে ঢোকা মাত্র মরে যাবে। হাতুড়েরা শহরে রাস্তায় রাস্তায় লাগিয়ে দিল ওষুধের বিজ্ঞাপন। তাতে থাকত, 'প্লেগের বিরুদ্ধে অব্যর্থ ওষুধ', 'বাতাসে ভাসমান জীবাণুর বিরুদ্ধে একমাত্র প্রতিষেধক', 'মহামারি প্রতিরোধী পিল', 'প্লেগ প্রতিরোধে অব্যর্থ পানীয়', 'প্লেগের চিরন্তন প্রতিষেধক', 'নির্ভেজাল প্লেগ ওয়াটার'…। 

হেনরি ফো লিখেছেন, প্লেগের ওষুধের এতরকম বিজ্ঞাপন বেরিয়েছিল যে, তা নিয়ে আলাদা একটা বই লেখা যায়। বিজ্ঞাপনের সঙ্গে ছিল হ্যান্ডবিল। তার একটায় লেখা ছিল, 'হল্যান্ড থেকে এসেছেন ধন্বন্তরি চিকিত্‍সক। গত বছর আমস্টারডামে তিনি হাজার হাজার প্লেগ রোগীকে সারিয়ে তুলেছেন।' একটায় বলা হয়েছিল, 'নাপোলি থেকে এসেছেন অভিজাত নারী চিকিত্‍সক। তিনি গুপ্তবিদ্যায় পারদর্শিনী।

গোটা শহর প্লেগের নানা `ওষুধ`-এ ছেয়ে গেল। কেউ বেচতে লাগল পিল, কেউ বা বেচত `রহস্যময় দ্রবণ`। ইতালিতে যখন প্লেগে প্রতিদিন ২০ হাজার মানুষ মারা যাচ্ছিল, তখন অনেকের জীবন বাঁচিয়েছেন।।' অনেক প্রতারক পারদ বা ওই জাতীয় কোনো পদার্থ দিয়ে বানিয়েছিল মলম। সবাইকে বলত, সেই মলম গায়ে মেখে নিলে প্লেগ আর শরীরে ঢোকার পথ পাবে না। একজন বড় বড় হরফে চারদিকে লিখেছিল, অমুক ডাক্তার বিনামূল্যে সবাইকে পরামর্শ দেন। সেই শুনে গরিবরা ভিড় করল তার চেম্বারে। তিনি অনেক ভালো ভালো উপদেশ দিলেন। প্লেগ থেকে বাঁচতে হলে কী কী ব্যায়াম করতে হবে বললেন। শেষে বললেন, ব্যায়ামের সঙ্গে খেতে হবে একরকম ওষুধ। তাহলে প্লেগ আর ছুঁতে পারবে না। এমনকি কেউ যদি প্লেগরোগীর সংস্পর্শে থাকে, তাহলেও তার কিছু হবে না। সেই ওষুধের এক শিশির দাম আধ ক্রাউন। 

এক গরিব নারী বললেন, ডাক্তারবাবু, আপনার যে বিনা পয়সায় চিকিত্‍সা করার কথা ছিল! ডাক্তার বললেন, আমার বিজ্ঞাপনটা ভালো করে পড়ে দেখ, লেখা আছে, বিনামূল্যে পরামর্শ দেওয়া হয়। ওষুধ খাওয়ার পরামর্শ তো আমি বিনামূল্যেই দিলাম বাপু। সেই নারী কপাল চাপড়ে বললেন, 'হায় হায়! আগে যদি জানতাম আপনি এমন ফাঁদ পেতে রেখেছেন, তাহলে কি আসতাম। ফেরিওয়ালাও তো বিনা পয়সায় তার জিনিস কেনার পরামর্শ দিয়ে থাকে!' লন্ডনে মহামারি চলেছিল দু'বছর। তার দাপটে শহরের এক চতুর্থাংশ মানুষ প্রাণ হারিয়েছিল। এখন বিজ্ঞানের অনেক অগ্রগতি হয়েছে। দ্রুত ভ্যাকসিনও তৈরি হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু মানুষের স্বভাব বদলায়নি। নকল প্রতিষেধক নিয়ে ফলাও ব্যবসা করার জন্য আছে অনেকে। জোচ্চুরির ব্যবসা করতে হলে একটা ছদ্মবেশ লাগে। 

অনেক প্রতারক পারদ বা ওই জাতীয় কোনো পদার্থ দিয়ে বানিয়েছিল মলম, যা গায়ে মেখে নিলে প্লেগ আর শরীরে ঢোকার পথ পাবে না বলে প্রচারণা চালাতে থাকেসপ্তদশ শতকে প্লেগের 'ওষুধ' বিক্রি করার জন্য কেউ সাজত হল্যান্ড ফেরত ডাক্তার, কেউ বা ইতালির ধন্বন্তরি। অনেকে সাজত ডাইনি কিংবা কালা জাদুর কারবারি। ডিফো চার শতাব্দী আগে লন্ডনের প্লেগের কথা লিখে গিয়েছেন। কিন্তু বইটা পড়লে এযুগের প্রতারকদেরও বেশ চেনা যায়। একুশ শতকে তাদের ভেক বদলেছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/কেএসকে