যে কারণে গভীর রাতে আইসিইউতে থাকা দুই নার্সকে কুপিয়েছেন করোনায় আক্রান্ত সবুজ

যে কারণে গভীর রাতে আইসিইউতে থাকা দুই নার্সকে কুপিয়েছেন করোনায় আক্রান্ত সবুজ

মো: ইদ্রিস আলম ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:২৬ ২৪ জুলাই ২০২১   আপডেট: ১৬:২৮ ২৪ জুলাই ২০২১

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

রাজধানীর উত্তরার শিন-শিন জাপান হাসপাতালের আইসিইউতে থাকা দুই নার্স ও একজন ওয়ার্ড বয়কে ছুরি দিয়ে কুপিয়েছেন এক করোনা রোগী। আহতদের রাতেই একই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

শুক্রবার মধ্যরাতে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ জানায়, আহতদের মধ্যে মিতু রেখার (২৪) অবস্থা সঙ্কটাপন্ন। বাকি দুজন হলেন-ইমোনা আফরোজ ওরফে কাকলি (৪৫) এবং ওয়ার্ড বয় মো. সাগর (২৫)।

শুক্রবার বিকেলে উত্তরা পশ্চিম থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) ইয়াসিন গাজী সংবাদমাধ্যমে জানান, উত্তরার শিন-শিন জাপান হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন করোনা রোগী মো. সবুজ (২৪) গতকাল রাত দেড়টার দিকে হঠাৎ করেই ছুরি নিয়ে নার্স মিতু রেখা ও ইমোনা আফরোজাকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করেন। এ সময় কর্তব্যরত ওয়ার্ড বয় সাগর তাদের বাঁচাতে গেলে সাগরও ছুরিকাঘাতের শিকার হয়। আহত তিনজনই শিন-শিন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এ বিষয়ে করোনা রোগী সবুজের বিরুদ্ধে মামলা করার প্রক্রিয়া চলছে। তাকে পুলিশ পাহারায় রাখা হয়েছে। 

খোঁজখবর নিয়ে জানা যায়, করোনা উপসর্গ নিয়ে গত ১৭ জুলাই মুন্সিগঞ্জ জেলার সিরাজদিখান উপজেলার শোলপুর গ্রামের সেন্টু ট্রিজের ছেলে সবুজ ট্রিজ হাসপাতালটিতে ভর্তি হন। হাসপাতালে আনা মাত্রই তাকে আইসিইউতে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। যদিও রোগীর স্বজনরা বলছেন, স্বাভাবিক অবস্থায় আছেন সবুজ ট্রিজ। চিকিৎসা চলাকালীন সময়ে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে ফল কাটার ছুরি দিয়ে নার্স ও ওয়ার্ড বয়কে সবুজ আঘাত করলে এ ঘটনা ঘটে। 

করোনা রোগী সবুজ ট্রিজ বলেন, তর্কবিতর্কের একপর্যায়ে শিনশিন জাপান হাসপাতালের নার্স ও ওয়ার্ড বয় মিলে তাকে মেরে ফেলতে চেয়েছিলেন। পরে তিনি আত্মরক্ষার্থে ছুরিকাঘাত করেছেন। 

অপরদিকে হাসপাতালের মহাব্যবস্থাপক শরীফুল ইসলাম বলেন, ওই রোগীর মানসিক সমস্যা রয়েছে। পরে বিষয়টি মীমাংসা হয়ে গেছে। 

এ বিষয়ে উত্তরা পশ্চিম থানার ওসি শাহ মো. আক্তারুজ্জামান ইলিয়াস বলেন, করোনা রোগীর ছুরিকাঘাতে তিনজন নার্স-ওয়ার্ড আহতের ঘটনায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ একটি অভিযোগ দিয়েছে। অভিযোগটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। ওই করোনা রোগী ও আহতরা শিনশিন জাপান হাসপাতালেই চিকিৎসাধীন।

পুলিশের উত্তরা বিভাগের উপ-কমিশনার মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম বলেন, মামলা হলে করোনার সংক্রমণ থেকে সুস্থ হওয়ার পর সাগরকে গ্রেফতার দেখানো হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/ইএ/টিআরএইচ