ইমদাদুল হক মিলনের ৬৭তম জন্মদিন আজ

ইমদাদুল হক মিলনের ৬৭তম জন্মদিন আজ

শিল্প ও সাহিত্য ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৪:০২ ৮ সেপ্টেম্বর ২০২১  

(ফাইল ছবি)

(ফাইল ছবি)

উপন্যাসিক, গল্পকার ও নাট্যকার ইমদাদুল হক মিলনের ৬৭তম জন্মদিন আজ। ১৯৫৫ সালে এদিন মুন্সীগঞ্জের মেদিনীমণ্ডল গ্রামে নানার বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। বাবার বাড়ি একই জেলার লৌহজং উপজেলার পয়সা গ্রামে। বাবা গিয়াসুদ্দিন খান এবং মা আনোয়ারা বেগম।

তিনি ১৯৭২ সালে পুরান ঢাকার কাজীর পাগলা হাইস্কুল থেকে মাধ্যমিক, ১৯৭৪ সালে জগন্নাথ কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিকে পাস করেন। ১৯৭৯ সালে জগন্নাথ কলেজ থেকেই অর্থনীতিতে স্নাতক (সম্মান) শেষ করেন।

লেখালেখি

শিশু-কিশোর পত্রিকা ‘কিশোর বাংলা’য় শিশুতোষ গল্প লিখে সাহিত্যজগতে আত্মপ্রকাশ করেন তিনি। এরপর ১৯৭৭ সালে সাপ্তাহিক বিচিত্রা পত্রিকায় ‘সজনী’ নামে একটি ছোট গল্প লিখে পাঠকের দৃষ্টি আর্কষণ করেন।

প্রথম লেখা গল্প ‘বন্ধু’ প্রকাশিত হয় ১৯৭৩ সালে। প্রথম উপন্যাস ‘যাবজ্জীবন’ ধারাবাহিক প্রকাশিত হয় ১৯৭৬ সালে। প্রথম গল্পের বই ‘ভালোবাসার গল্প’ প্রকাশিত হয় ১৯৭৭ সালে। 

উপন্যাস: তার বইয়ের সংখ্যা দুইশত। জনপ্রিয় উপন্যাসের মধ্যে রয়েছে ‘অধিবাস’, ‘পরাধীনতা’, ‘কালাকাল’, ‘বাঁকা জল’, ‘নিরন্নের কাল’, ‘পরবাস’, ‘কালোঘোড়া,’ ‘নেতা যে রাতে নিহত হলেন’, ‘মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস সমগ্র’, ‘একাত্তর’, ‘সুতোয় বাঁধা প্রজাপতি’, ‘যাবজ্জীবন’, ‘মাটি ও মানুষের উপাখ্যান’, ‘পর’, ‘কেমন আছ সবুজপাতা’, ‘জীবনপুর’। 

নাটক: তার লেখা দুই শতাধিক নাটকের মধ্যে ‘কোন কাননের ফুল’, ‘বারো রকম মানুষ’, ‘রূপনগর’, ‘যত দূরে যাই’, ‘যুবরাজ’, ‘কোথায় সে জন’, ‘আলতা’, ‘একজনা’, ‘নীলু’, ‘তোমাকেই’, ‘আঁচল’, ‘খুঁজে বেড়াই তারে’, ‘কোন গ্রামের মেয়ে’, ‘মেয়েটি এখন কোথায় যাবে’ বিপুল দর্শকপ্রিয়তা পায়। 

অর্জন: তার অনবদ্য উপন্যাস ‘নূরজাহান’ তাকে খ্যাতির শীর্ষে পৌঁছে দিয়েছে। শুধু তাই নয়, ‘নূরজাহান’ একাধিক ভাষায় অনূদিত হয়েছে। ২০১৩ সালের ৩০ আগস্ট এই অসাধারণ উপন্যাসের জন্য তিনি সাহিত্য পুরস্কার ‘আইআইপিএম-সুরমা চৌধুরী স্মৃতি আন্তর্জাতিক পুরস্কার’ পেয়েছেন; যা এশিয়ার সাহিত্য পুরস্কারগুলোর অন্যতম।

২০০৫ সালে তিনি জাপান ফাউন্ডেশন আয়োজিত ‘তাকেশি কায়েকো মেমোরিয়াল এশিয়ান রাইটারস লেকচার সিরিজে’ বাংলা ভাষার একমাত্র লেখক হিসেবে জাপানের চারটি ইন্টারন্যাশনাল সেন্টারে বাংলাদেশের সাহিত্য এবং তার নিজের লেখা নিয়ে বক্তৃতা করেন।

লেখালেখির স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি বাংলা একাডেমি পুরস্কার, হুমায়ুন কাদির সাহিত্য পুরস্কার, এসএম সুলতান পদক, ঢাকা যুব ফাউন্ডেশন পদক, শেরেবাংলা পদক, টেনাশিনাস পুরস্কার, জাপান বিবেক সাহিত্য পুরস্কার, কলকাতা চোখ সাহিত্য পুরস্কার, জাপান রাইটার্স অ্যাওয়ার্ড, মাদার তেরেসা পদক, বাচসাস পুরস্কারসহ বহু পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন।

১৯৯২ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার পেয়েছেন কথাসাহিত্যে। লেখালেখির পাশাপাশি সাংবাদিকতায়ও তিনি বেশ খ্যাতি অর্জন করেছেন। বর্তমানে তিনি কালের কণ্ঠের সম্পাদক।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম