৯ হাজারের বেশি কর্মী ছাঁটাই করছে এমিরেটস এয়ারলাইন্স

৯ হাজারের বেশি কর্মী ছাঁটাই করছে এমিরেটস এয়ারলাইন্স

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৭:০২ ১১ জুলাই ২০২০   আপডেট: ১৯:৫৩ ১১ জুলাই ২০২০

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্বের অনেক দেশেই বন্ধ রয়েছে আন্তর্জাতিক বিমান চলাচল। এর ফলে চরম অর্থনৈতিক মন্দার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে বিশ্বের এয়ারলাইন্স বাণিজ্য, যার প্রভাব পড়েছে আরব-আমিরাত ভিত্তিক বিমান সংস্থা এমিরেটস এয়ারলাইন্সের উপরও।

সম্প্রতি এয়ারলাইন্সটির প্রেসিডেন্ট এক ঘোষণায় জানিয়েছেন, করোনাভাইরাস মহামারির কারণে তারা খরচ কমানোর জন্য ৯ হাজারের বেশি কর্মী ছাঁটাইয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

বিবিসি বলছে, এটি বিশ্বে করোনাভাইরাসের সময় কোনো বিমান সংস্থায় ছাঁটাইয়ের সবচেয়ে বড় তালিকা। করোনা সংকটের আগে এই বিমান সংস্থাটি কর্মী সংখ্যা ছিল ৬০ হাজার।

এরই মধ্যে সংস্থাটির প্রেসিডেন্ট স্যার টিম ক্লার্ক ১০ শতাংশ কর্মী কমিয়ে ফেলেছেন। কিন্তু তিনি বলছেন, ‘এই হার অন্তত ১৫ শতাংশ হতে ‍পারে। আমরা সে পথেই হাঁটছি।’

বিশ্বের বিমান সংস্থাগুলোর মধ্যে নানা ধরণের প্রভাব পড়েছে করোনাভাইরাসের কারণে। কিন্তু আশঙ্কার কথা হচ্ছে সংস্থাগুলো ক্ষতির মাত্রা কোনোভাবেই কমাতে পারছে না।

এত বড় সংখ্যক কর্মী ছাঁটাইয়ের সিদ্ধান্ত নেয়া টিম ক্লার্ক বিবিসিকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে বলছেন, ‘আমরা অন্য সংস্থার মতো অতটা খারাপ অবস্থানে নেই।’

তিনি বলেন, ‘এই মহামারির আগেও আমরা বিশ্বের সেরা বিমান সংস্থা হিসেবে খবরের শিরোনামে এসেছিলাম।’

তবে এই মহামারি বিশ্বের বিমান সংস্থাগুলো এবং যানবাহনের সঙ্গে জড়িতে ব্যক্তিদের উপর বড় ধরণের প্রভাব ফেলবে। তাদের জীবনযাত্রার মান মারাত্মকভাবে অবনতি ঘটাচ্ছে। এটি এমিরেটস সহ চাকরি হারানো সব সংস্থার কর্মীর জন্য খুবই দুঃখজনক।

বিবিসি বলছে, প্রতিদিন সংস্থাগুলোর ক্ষতির হার বাড়ছে। আতঙ্ক নিয়ে প্রতিদিন কাজে যাচ্ছেন কর্মীরা। এতে তাদের মধ্যে পারস্পরিক যোগাযোগ এবং কাজের স্বচ্ছতা বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। একটি মানসিক যন্ত্রণার মধ্য দিয়ে কাটছে তাদের দিন। যেকোনো সময় চাকরি হারানোর ভয় জেঁকে বসেছে তাদের মধ্যে।

বিশ্বের অন্তত ৭০০ সংস্থার ৪ হাজার ৫০০ বিমান চালক তাদের কর্মস্থল থেকে কোনো কারণ ছাড়াই নেতিবাচক নোটিশ পেয়েছেন। যাদের মধ্যে অন্তত ১ হাজার ২০০ বিমান চালক বলছেন, করোনাভাইরাস শুরুর পর তারা চাকরি হারিয়েছেন।

এই ছাঁটাইয়ের প্রভাব বেশি পড়েছে এয়ারবাস এবং বোয়িংয়ের চালকদের ওপর। এ দুটি কোম্পানি বিশ্বের বিমান সংস্থাগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বড় এবং প্রভাবশালী।

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী