৯৯৯ নম্বরেই মুক্তি শিকলবন্দী সাদিয়ার 
Best Electronics

৯৯৯ নম্বরেই মুক্তি শিকলবন্দী সাদিয়ার 

ডেস্ক নিউজ ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১০:০০ ৯ মে ২০১৯   আপডেট: ১০:০৫ ৯ মে ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় সিদ্ধিশ্বরী কলেজের অনার্সের ছাত্রী সাদিয়া আক্তারকে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখায় বুধবার ভোরে বাবা-মাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

ফতুল্লার দাপা শিহাচর শাহ জাহান রোলিং মিল এলাকার একটি বাড়ি থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।  

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার দক্ষিণ ভাটামারা গ্রামের আ. রশিদ পাটোয়ারীর ছেলে বশির উদ্দিন ও তার স্ত্রী ফরিদা বেগম।

সিদ্ধিশ্বরী কলেজের অনার্স প্রথম বর্ষের ছাত্রী সাদিয়া আক্তার বলেন, হিন্দু ধর্মের সাগর নামে এক যুবক তাকে উত্যক্ত করত। সাত মাস যাবত সাগরকে তিনি চেনেন। এর মধ্যে একাধিকবার সাগর তাকে প্রেমের প্রস্তাব দেয়। তার প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় নানাভাবে ভয় ভীতি দেখায়। এতে তিনি বাধ্য হয়ে তার প্রেমের প্রস্তাব গ্রহণ করেন।

সাদিয়া বলেন, ওই সময় সাগর কথা দিয়ে ছিল ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে তাকে বিয়ে করবে। কিন্তু সাগর তা না করে প্রেমের সম্পর্কে তার সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে। বিষয়টি তার বাবা-মা জানতে পেরে তাকে একাধিকবার বাধা দেয়। কিন্তু সে বাধা অমান্য করে ওই যুবকের কাছে চলে যায়। 

তিনি আরো বলেন, এ ঘটনায় কয়েকদিন ধরে তার বাবা মা শিকল দিয়ে পা বেঁধে তাকে ঘরে আটকে রাখেন।

পরে জাতীয় জরুরি ৯৯৯ নম্বরে ফোন করে জানানো হয় ফতুল্লার ওই বাসায় তাকে শিকল দিয়ে কিছু লোকজন বেঁধে রেখেছে। এ সংবাদ পেয়ে পুলিশ গিয়ে শিকল বাঁধা অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে।

ফতুল্লা মডেল থানার ওসি আসলাম হোসেন বলেন, ৯৯৯ নম্বরে ফোন পেয়ে ফতুল্লার দাপা শিহাচর শাহ জাহান রোলিং মিল এলাকায় পুলিশ পাঠানো হয়। সেখানে গিয়ে একটি বাড়িতে তরুণীকে শিকল দিয়ে বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ।   

তিনি আরো বলেন, সাদিয়াকে ১৪ এপ্রিল থেকে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখে তার বাবা ও মা। এতে সে অসুস্থ হয়ে পড়ে। পরে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে পুলিশ তাকে চিকিৎসা দিয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মুঈনুল ইসলাম বলেন, প্রাপ্তবয়স্ক কন্যাকে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখা অপরাধ। এ মামলায় ওই মেয়ের বাবা ও মাকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে।  

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে

Best Electronics