৩৬ বছর আগে মৃত নারীকে জীবিত দেখিয়ে জমি বিক্রি!

৩৬ বছর আগে মৃত নারীকে জীবিত দেখিয়ে জমি বিক্রি!

রাজিবপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১২:৫১ ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০   আপডেট: ১৩:২০ ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

কুড়িগ্রামের চর রাজিবপুরে ৩৬ বছর আগে মারা যাওয়া দৌলতি বেওয়া নামে এক নারীকে জীবিত দেখিয়ে জমি বিক্রি ও দলিল করা হয়েছে।

৩ ফেব্রুয়ারি চর রাজিবপুর উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রারের কার্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে কয়েকদিন ধরে ওই এলাকায় তোলপাড় চলছে।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রার নজরুল ইসলাম মোটা অংকের ঘুষ নিয়ে এ জালিয়াতি করেছেন। ঘটনাটি ফাঁস হওয়ার পর দলিল লেখক নূরনবী, দলিল গৃহিতা অধ্যক্ষ ইসমাইল হোসেনসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেছেন দৌলতি বেওয়ার স্বজনরা।

তারা জানান, রাজিবপুর সদর ইউপির বদরপুরের নহর শেখের স্ত্রী দৌলতি বেওয়ার নামে ০.৫৪ একর আবাদি জমি ছিলো। ৩ ফেব্রুয়ারি ০.৫০ একর জমি এক লাখ ৬৫ হাজার টাকায় বিক্রি দেখিয়ে দলিল রেজিস্ট্রি করেছেন সাব-রেজিস্ট্রার নজরুল ইসলাম। এর জন্য ঘুষ হিসেবে নিয়েছেন দুই লাখ টাকা। জমির ক্রেতা হিসেবে দেখানো হয়েছে গোল্ডেন লাইফ একাডেমি নামে একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে। দলিল লেখক নূরনবীর সঙ্গে আঁতাত করে জমি দখল করেছেন ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ ইসমাইল হোসেন।

দৌলতি বেওয়ার স্বজন আব্দুল করিম বলেন, আমার দাদি মারা গেছে তিন যুগ আগে। মৃত মানুষতে জীবিত কইরা ক্যামনে জমি কবলা অইল? আমি এর বিচার চাই।

উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রার নজরুল ইসলাম বলেন, আমি এ বিষয়ে কিছুই জানি না। ঘটনা সত্যি হলে দলিল লেখকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

দলিল লেখক নূরনবী বলেন, আমি এত কিছু জানতাম না। ক্রেতা আমাকে কাগজপত্র দিয়েছেন, আমি দলিল লিখে দিয়েছি। আমাকে খরচ হিসেবে ১৫ হাজার টাকা দেয়া হয়েছে।

গোল্ডেন লাইফ একাডেমি’র অধ্যক্ষ ইসমাইল হোসেন বলেন, আমি একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান করতে চাচ্ছি। সেজন্য জমি দরকার হওয়ায় ওই জমি কিনেছি। জমির মালিকদের সঙ্গে একটু ঝামেলা হয়েছে। সে বিষয়ে সমঝোতার চেষ্টা চলছে।

চর রাজিবপুর থানার ওসি মো. গোলাম মোর্শেদ তালুকদার বলেন, মৃত নারীকে জীবিত দেখিয়ে জমির দলিল করার অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর