Alexa ৩১ বছর ধরে ঠায় দাঁড়িয়ে আছে সেতুটি

৩১ বছর ধরে ঠায় দাঁড়িয়ে আছে সেতুটি

নাজমুল হাসান নাহিদ, গুরুদাসপুর ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:২১ ২০ অক্টোবর ২০১৯  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

নাটোরের গুরুদাসপুরের চাকল বিলে ৩৪ বছর আগে নির্মাণ করা হয়েছিলো সেতু ও কাঁচা সড়ক। সেতুটি আজও ঠায় দাঁড়িয়ে আছে। কিন্তু ১৯৮৮ সালের বন্যায় মাটি ধসে বিলীন হয়ে গেছে দুই পাশের সড়ক। এতে ৩১ বছর ধরে ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে আছে সেতুটি।

এত বছরেও সেতুর দুই পাশের সড়ক সংস্কার না হওয়ায় দুর্ভোগ পোহাচ্ছে ওই উপজেলার চাপিলা ইউপির পাঁচ গ্রামের ৩০ হাজার মানুষ। বিকল্প পথে অতিরিক্ত চার কিলোমিটার ঘুরে যাতায়াত করতে হয় এসব গ্রামের শিক্ষার্থী-কর্মজীবীদের।

চাপিলা ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান মো. আবু জাফর মিয়া জানান, ১৯৮৫ সালে উপজেলা পরিষদের এডিবি তহবিল থেকে চাকলের বিলে সেতু ও কাঁচা সড়ক নির্মাণ করা হয়েছিলো। ১৯৮৮ সালের বন্যায় সেতুর দুই পাড়ের সড়কের মাটি বিলীন হয়ে হয়ে যায়। এরপর থেকেই অব্যবহৃত পড়ে আছে সেতুটি।

তিনি আরো বলেন, চাকলের বিল কেন্দ্রিক মোকিমপুর, তেলটুপি, রওশনপুর, নওপাড়া, ঝাউপাড়া, সোনাবাজু গ্রামের মানুষ দীর্ঘদিন সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থার বাইরে ছিলো। তাদের যোগাযোগের পথ মসৃণ করতেই বিলের মাঝে সেতু ও সড়ক নির্মাণ করা হয়। এখন সড়ক না তারা আধুনিক সুযোগ-সুবিধা থেকে অনেকটাই বঞ্চিত।

বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান মো. আলাল উদ্দিন ভুট্টু বলেন, বিলের দক্ষিণ পাশে রওশনপুর-তেলটুপি গ্রামের গ্রামীণ সড়কটি পাকা করা হয়েছে। যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ওই গ্রামগুলোর মানুষ চার কিলোমিটার ঘুরে যাতায়াত করছে। পুরনো ওই সড়ক সংস্কারের প্রস্তাব নাটোর-৪ আসনের এমপি মো. আবদুল কুদ্দুসকে জানানো হয়েছে।

এমপি মো. আবদুল কুদ্দুস বলেন, চাকলের বিল কেন্দ্রিক ওই গ্রামগুলোর মানুষের কথা ভেবে সেতুটি সংস্কার ও নতুন সড়ক নির্মাণ প্রকল্প প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। অনুমোদন পেলেই দ্রুত বাস্তবায়ন করা হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর