Alexa স্বামীর বিরুদ্ধে জিডি, স্ত্রীকে হত্যা করে ঝুলিয়ে রাখল স্বামী!

স্বামীর বিরুদ্ধে জিডি, স্ত্রীকে হত্যা করে ঝুলিয়ে রাখল স্বামী!

নোয়াখালী প্রতিনিধি  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:৪৬ ১২ ডিসেম্বর ২০১৯   আপডেট: ১৮:৫৮ ১২ ডিসেম্বর ২০১৯

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

নোয়াখালীর সেনবাগের মোহম্মদপুরে স্বামীর বিরুদ্ধে থানায় জিডি করায় হাছিনা আক্তার পাখি নামে এক গৃহবধূকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। পরে ঘটনা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে লাশ ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। 

এ অভিযোগ উঠেছে ওই গৃহবধূর স্বামী আনোয়ার হোসেনের বিরুদ্ধে। ঘটনার পর থেকে নিহতের স্বামী ও তার পরিবারের লোকজন পলাতক রয়েছেন।

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে দক্ষিণ রাজারামপুর গ্রাম থেকে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। 

নিহত হাছিনা আক্তার পাখি ফেনীর দাগনভূঞা উপজেলার পূর্ব চন্দ্রপুর ইউপির বেটারপাড়া গ্রামের আবু তাহেরের মেয়ে। তিনি দুই ছেলে ও এক মেয়ের মা।

নিহতের চাচাতো ভাই ইউনুছ অভিযোগ করে বলেন, ১২ বছর আগে সেনবাগের মোহাম্মদপুর ইউপির দক্ষিণ রাজারামপুর গ্রামের রুহুল আমিনের ছেলে আনোয়ারের সঙ্গে পাখির বিয়ে হয়। বিয়ের পর বিভিন্ন অজুহাতে তাকে মারধর করতো আনোয়ার। সে কোনো কাজ করতো না দেখে কয়েক মাস আগে তার ভাই ও শ্বশুর মিলে তাকে একটি সিএনজি চালিত অটোরিকশা কিনে দেয়। এরপরও বিভিন্ন সময় টাকার জন্য আনোয়ার মারধর করতো পাখিকে।

সর্বশেষ গাড়ির লাইসেন্স করার টাকার জন্য পাখিকে চাপ দেয় আনোয়ার। দু’দিন আগে পাখির বাবা আনোয়ারকে ২০ হাজার টাকা দেয়, কিন্তু তাতেও আনোয়ার ক্ষান্ত হয়নি সে আরো টাকার জন্য পাখিকে মারধর করে। 

ইউনুছের দাবি বুধবার পাখি থানায় গিয়ে তাকে মারধরের ঘটনায় একটি জিডি করে এবং তার একটি কপি বাড়িতে নিয়ে আসে। এ ঘটনার জের ধরে রাতে আনোয়ার বাড়িতে এসে কপিটি ছিঁড়ে আগুনে পুড়িয়ে দেয় এবং পাখিকে মারধর করে হত্যা করে ঘরের মধ্যে ঝুলিয়ে রেখে পালিয়ে যায়।

সেনবাগ থানার (ওসি) মিজানুর রহমান বলেন, নিহত হাছিনা আক্তার পাখির কোনো লিখিত অভিযোগ আমরা পাইনি। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। অভিযোগের ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ