Alexa স্কুলের ফান্ড একাই লুটছেন প্রধান শিক্ষক!

চরগোয়ালী খন্দকার নাজির আহমেদ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়

স্কুলের ফান্ড একাই লুটছেন প্রধান শিক্ষক!

শাহাজাদা এমরান, কুমিল্লা ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২২:১০ ২৩ অক্টোবর ২০১৯   আপডেট: ২১:১৮ ২৪ অক্টোবর ২০১৯

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

কুমিল্লার দাউদকান্দির চরগোয়ালী খন্দকার নাজির আহমেদ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহার ও দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে।

অভিযুক্ত দেবেন্দ্র চন্দ্র বৈষ্ণবের বিরুদ্ধে ২৩ আগস্ট উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন উপজেলা চেয়ারম্যান অবসরপ্রাপ্ত মেজর মোহাম্মদ আলী।

অভিযোগে চেয়ারম্যান জানান, ৬ জুলাই চরগোয়ালী খন্দরকার নাজির আহমেদ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় পরিদর্শনে গিয়ে বিভিন্ন অনিয়ম দেখতে পান তিনি। ভাঙা চেয়ার-টেবিল, জরাজীর্ণ ক্লাসরুম, সংস্কারবিহীন ভবনে ঠিকমতো পড়াশোনা করতে পারছে না শিক্ষার্থীরা। ওই সময় প্রধান শিক্ষক দেবেন্দ্র চন্দ্র বৈষ্ণবের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাৎসহ বিভিন্ন দুর্নীতির অভিযোগ করেছেন শিক্ষক-অভিভাবকরাও।

উপজেলা চেয়ারম্যান আরো জানান, বিদ্যালয় পরিদর্শনের সময় আলাদা সিড়ি নির্মাণের কাজ চলমান দেখতে পেয়েছেন তিনি। তবে ওই সিড়ির বিষয়ে স্কুল কমিটি ও উপজেলা প্রকৌশলী কিছুই জানেন না। এছাড়া প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মাণের অনুমোদনের জন্য কোনো এক অজ্ঞাত ব্যক্তিকে স্কুলফান্ড থেকে এক লাখ ৫০ হাজার টাকা দিয়েছেন। এ বিষয়েও কিছু জানে না স্কুল কমিটি।

স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী মাহফুজুর রহমানের সহায়তায় দীর্ঘদিন ধরেই অর্থ আত্মসাৎসহ বিভিন্ন অনিয়ম করে চলেছেন প্রধান শীক্ষক দেবেন্দ্র চন্দ্র বৈষ্ণব। 

অভিযোগ পেয়ে স্কুল পরিদর্শন করেছেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার কানিজ আফরোজ। তিনি জানান, উপজেলা চেয়ারম্যান ও শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হয়েছে। চরগোয়ালী খন্দকার নাজির আহমেদ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দেবেন্দ্র চন্দ্র বৈষ্ণব স্কুল কমিটির অনুমোদন ছাড়াই বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের মাধ্যমে অর্থ আত্মসাৎ করেছেন। তিনি ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন।

জেলা শিক্ষা অফিসার মো. আবদুল মজিদ বলেন, ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষকের অনিয়মের বিষয়ে কোনো প্রতিবেদন আমি পাইনি। এছাড়া দাউদকান্দির তৎকালীন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার কানিজ আফরোজ বর্তমানে নোয়াখালীতে কর্মরত। তবুও বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর/আরআর