স্কুলের পাশে প্লাস্টিক কারখানা, গন্ধে অতিষ্ঠ

স্কুলের পাশে প্লাস্টিক কারখানা, গন্ধে অতিষ্ঠ

শামসুল হক ভূঁইয়া, গাজীপুর ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১০:১৬ ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

গাজীপুর মহানগরের বোর্ডবাজারে গাছা উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশে স্থাপন করা হয়েছে লামিয়া গার্মেন্টস অ্যাক্সেসরিজ নামে একটি প্লাস্টিক প্যাক তৈরির কারখানা। কারখানার উৎকট ও ঝাঁঝালো গন্ধে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

একই অবস্থা মহানগর ও আশপাশের আরো কয়েকটি স্কুলের। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, কারখানার শব্দ ও গন্ধে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। এতে ব্যাহত হচ্ছে পড়াশোনা।

গাছা হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক মো. হারুনুর রশিদ জানান, কারখানায় প্লাস্টিক দানা গলিয়ে মালামাল তৈরির সময় উৎকট ও ঝাঁজালো গন্ধ বের হয়। এতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা বমি করেন, মাথা ঘুরে পড়ে যান।

গাছা উচ্চ বিদ্যালয় ভবন

প্রধান শিক্ষক আরো জানান, প্লাস্টিক দানা গলিয়ে প্যাকেট তৈরি করা হবে- এমন তথ্য গোপন রেখেছিল লামিয়া গার্মেন্টস অ্যাক্সেসরিজ। শুধু গামেন্টস পণ্য তৈরির কথা বলে ২০১৬ সালে নো-অবজেকশন সনদ নিয়েছিল। ২০১৭ সালে কারখানাটি স্কুলের পাশে স্থানান্তর করা হয়। একইসঙ্গে শুরু হয় প্লাস্টিক দানা গলিয়ে প্যাকেট তৈরির কাজ। এ বিষয়ে ১৮ ফেব্রুয়ারি পরিবেশ অধিদফতরের গাজীপুর কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে।

লামিয়া গার্মেন্টস অ্যাক্সেসরিজের মালিক মো. শহিদুল ইসলাম সিদ্দিক জানান, স্কুলের নো-অবজেকশন সনদ, পরিবেশ অধিদফতরের ছাড়পত্র, ট্রেড লাইসেন্স নিয়েই ২০১৪ সালে মহানগরীর হায়দ্রাবাদে এ কারখানা চালু হয়। ২০১৭ সালে কারখানাটি গাছা এলাকায় স্থানান্তর করা হয়েছে। এখানে পোশাক কারখানায় ব্যবহারের জন্য পলিপ্যাক ও গাম টেপসহ বিভিন্ন অ্যাক্সসরিজ তৈরি করা হয়।

গাছা স্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র মো. শরীফ জানান, কারখানায় প্লাস্টিক প্যাক তৈরির সময় অসহনীয় দুর্গন্ধ আসে। তখন ক্লাসরুমের দরজা-জানালা বন্ধ করে রাখতে হয়।

পরিবেশ অধিদফতরের গাজীপুর কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মো. আব্দুস সালাম জানান, অভিযোগ খতিয়ে দেখা হবে। সত্যতা পেলে কারখানার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর