সৌদি যুবরাজ সালমানের বিরুদ্ধে সমন জারি করলো যুক্তরাষ্ট্র

সৌদি যুবরাজ সালমানের বিরুদ্ধে সমন জারি করলো যুক্তরাষ্ট্র

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২৩:২৮ ১০ আগস্ট ২০২০  

যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান

যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান

সৌদি আরবের যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের বিরুদ্ধে সমন জারি করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের একটি আদালত। শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের ডিস্ট্রিক্ট অব কলাম্বিয়ার একটি আদালতে সৌদির সাবেক গোয়েন্দা সাদ আল-জাবরির দায়েরকৃত মামলার ভিত্তিতে যুবরাজের বিরুদ্ধে সমন জারি করা হয়েছে।

শুক্রবার সালমানের বিরুদ্ধে এ সমন জারি করা হয়। এর একদিন আগেই সাদ আল-জাবরি মামলা দায়ের করেছেন। মামলার অভিযোগে তিনি বলেছেন, তাকে বেশ কয়েকবার গুপ্তহত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। তবে সেসবের একটিও সফল হয়নি।

কানাডার দৈনিক গ্লোব অ্যান্ড মেইল জানিয়েছে, যুবরাজ মুহাম্মাদ বিন সালমানের ভয়ে সাদ আল-জাবরির নিরাপত্তা কয়েক গুণ বাড়িয়েছে কানাডা সরকার। পুলিশের পাশাপাশি ব্যক্তিগত নিরাপত্তারক্ষীর সংখ্যাও বাড়ানো হয়েছে। আল-জাবরিকে হত্যার জন্য সৌদি রাজপরিবার নতুন করে চেষ্টা চালাচ্ছে বলে তার নিরাপত্তা ব্যবস্থা বাড়ানো হয়েছে বলেও জানায় পত্রিকাটি।

মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, বিন সালমান সম্পর্কে এত অপমানজনক, সংবেদনশীল এবং ভয়াবহ তথ্য অন্য কোথাও নেই যা ড. সাদের স্মৃতি এবং মস্তিষ্কে রয়েছে। ফলে জাবরিকে হত্যা করতে চান অভিযুক্ত বিন সালমান। গত তিন বছর ধরে সেই লক্ষ্য অর্জনের চেষ্টা করে চলেছেন তিনি।

জাবরি আরো বলেন, ২০১৮ সালের অক্টোবর মাসে তুরস্কের ইস্তাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটে প্রখ্যাত সাংবাদিক জামাল খাশোগির হত্যাকাণ্ডের পরপরই তাকে হত্যার জন্যও ঘাতক স্কোয়াড পাঠিয়েছিলো যুবরাজ মুহাম্মাদ বিন সালমান। তবে ঘাতক স্কোয়াড হত্যা প্রচেষ্টা চালিয়েও ব্যর্থ হয়।

প্রায় তিন বছর আগে কানাডায় রাজনৈতিক আশ্রয় নেন সাদ আল-জাবরি। তখন থেকেই তিনি দেশটিতে নিরাপত্তা সুরক্ষা ভোগ করছেন। ৬১ বছর বয়সি জাবরি সৌদি আরবে ব্রিটেনের এমআইসিক্স’সহ পশ্চিমা গুপ্তচর সংস্থাগুলোর তৎপরতা সম্পর্কে সম্পর্কে অবহিত। যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন এবং পশ্চিমা বিশ্বের অনেক দেশের গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে সৌদির মধ্যস্থতাকারী হিসেবে কাজ করতেন তিনি।

জানা গেছে, সমনে যুবরাজ সালমান ছাড়াও আরো ১২ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। সমনে বলা হয়, সালমান যদি সমনে সাড়া দিতে ব্যর্থ হয় তবে অবধারিতভাবেই দায়ের করা অভিযোগের ভিত্তিতে তার বিরুদ্ধে রায় দেয়া হবে।

স্বেচ্ছা-নির্বাসিত সাবেক এই গোয়েন্দা কর্মকর্তাকে দেশে ফেরানোর চেষ্টা করে সৌদি আরব। জাবরিকে দেশে ফেরাতে দুর্নীতির অভিযোগ এনে ইন্টারপোলের মাধ্যমে রেড নোটিশও জারি করে দেশটি। তবে পরবর্তীতে সংস্থা অন্যান্য দেশের সমালোচনার মুখে রেড নোটিশ প্রত্যাহার করে নেয় ইন্টারপোল।

উল্লেখ্য, মামলায় জাবরির দাবিগুলো এখনো শুধুমাত্র অভিযোগ। এসব অভিযোগ এখনো প্রমাণিত হয়নি।

সূত্র- আল জাজিরা

ডেইলি বাংলাদেশ/এসএমএফ