সেপটিক ট্যাংকে নিখোঁজ স্কুলছাত্রের মরদেহ

সেপটিক ট্যাংকে নিখোঁজ স্কুলছাত্রের মরদেহ

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১১:৫০ ১১ আগস্ট ২০২০   আপডেট: ১১:৫৩ ১১ আগস্ট ২০২০

সেপটিক ট্যাংক (ফাইল ছবি)

সেপটিক ট্যাংক (ফাইল ছবি)

সাতক্ষীরায় ১০ দিন আগে নিখোঁজ ময়নুর রহমান নামে এক স্কুলছাত্রের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। সোমবার সদর উপজেলার বাঁকাল এলাকার একটি ইটভাটার সেপটিক ট্যাংকে তার মরদেহটি পাওয়া যায়।

নিহত ময়নুর রহমান সদর উপজেলা পাঁচরকি গ্রামের সুরত আলীর ছেলে ও মীর্জাপুর আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র ছিলো।

এর আগে ঘটনায় জড়িত সন্দেহে পুলিশ এক ব্যক্তিকে আটক করে। তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। আটক হুমায়ন কবির সদর উপজেলার আলীপুর গ্রামের আহাদ আলীর ছেলে। 

সাতক্ষীরার অ্যাডিশনাল এসপি (প্রশাসন) আসাদুজ্জামান জানান, গত ৩১ জুলাই প্রতিদিনের মতো ময়নুর তার স্কুলের পড়া শেষ করে বিকেলে বড় ভাইয়ের অটোরিকশা নিয়ে বাড়ি থেকে বের হয়ে সাতক্ষীরা শহরের দিকে আসে। এরপর নিখোঁজ হয় সে। এ ঘটনার পরদিন ময়নুরের চাচা আফছার আলী সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন।

তদন্তের একপর্যায়ে সোমবার দুপুরে হুমায়ন কবিরকে তার শ্বশুর বাড়ি দেবহাটা উপজেলার শ্রীরামপুর থেকে আটক করে পুলিশ। একইসঙ্গে ময়নুরের অটোরিকশা উদ্ধার করা হয়। এরপর তার স্বীকারোক্তি মোতাবেক শহরের অদূরে বাঁকাল এলাকায় পরিত্যক্ত ইটভাটার সেপটিক ট্যাংক থেকে ময়নুরের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

সাতক্ষীরার অ্যাডিশনাল এসপি (সদর সার্কেল) মীর্জা সালাহ উদ্দীন বলেন, ময়নুর হত্যায় জড়িত বাকি আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম