সেতুতে ঘুচবে ভোগান্তি

সেতুতে ঘুচবে ভোগান্তি

নওগাঁ প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১০:৪১ ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

নওগাঁ জেলা সদরের সঙ্গে রাণীনগরের বোদলা, পালশা ও তেবারিয়া ১১ গ্রামের সহজ যোগাযোগ মাধ্যম সান্দিড়া-বোদলা খেয়াঘাট। এখানে একটি সেতুর অভাবে দুর্ভোগ পোহাচ্ছে ৫০ হাজার মানুষ।

ভুক্তভোগীরা জানান, খেয়া ঘাটে একটি সেতু নির্মাণ করা হলে কমবে প্রায় ১৫ কিলোমিটার সড়ক। এতে ভোগান্তি ছাড়াই চলাচল করতে পারবেন তারা।

রাণীনগরের বোদলা গ্রামের কয়েকছাত্রী তানিয়া আক্তার জানান, খেয়াঘাট হয়ে রানীণগর উপজেলা সদরে পৌঁছাতে অতিরিক্ত ১৫ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে হয়। এখানে সেতু নির্মিত হলে পাঁচ কিলোমিটার পাড়ি দিয়ে সান্তাহার কলেজে পৌঁছানো সম্ভব।

তেবারিয়া গ্রামের জহুরুল ইসলাম জানান, জরুরি ভিত্তিতে রোগী বহনে খেয়াঘাটের বিকল্প নেই। একবার নৌকা মিস করলে প্রায় এক ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হয়। এতে রোগীর অবস্থা আরো খারাপ হয়। এখানে সেতু নির্মাণ করা হলে দুর্ভোগ থেকে মুক্তি পাবে রোগী, শিক্ষার্থীসহ সব পেশার মানুষ।

আদমদীঘির সান্দিড়া গ্রামের ইউপি সদস্য শাহীনা জোয়ারদার জানান, বোদলা-সান্দিড়া খেয়াঘাটে সেতু নির্মাণ করা হলে সহজেই পণ্য পরিবহন করতে পারবেন কৃষক-ব্যবসায়ীড়া। এতে আদমদীঘি-রাণীনগরের বাণিজ্যের উন্নতি হবে।

আদমদীঘি উপজেলা প্রকৌশলী সাজেদুর ইসলাম জানান, বোদলা-সান্দিড়া খেয়াঘাটে সেতু নির্মাণের জন্য প্রস্তাবপত্র পাঠানো হয়েছে।

রানীনগর উপজেলা প্রকৌশলী শাইদুর রহমান মিঞা জানান, ৯৫ মিটার সেতুর জন্য প্রস্তাবপত্র পাঠানো হয়েছিল। প্রস্তাবটি একনেকে অনুমোদন পেয়েছে। এরইমধ্যে মাটি পরীক্ষা করা হয়েছে। শিগগিরই টেন্ডারের মাধ্যমে সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু করা হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর