Alexa সেই মাদরাসা সুপার বহিষ্কার 

সেই মাদরাসা সুপার বহিষ্কার 

কালীগঞ্জ (গাজীপুর) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৭:২৬ ১১ নভেম্বর ২০১৯  

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

গাজীপুরের কালীগঞ্জের ভাইয়াসূতি হাফিজিয়া মাদরাসা ও এতিমখানার সেই সুপার মো. আরিফুল্লাহকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। ওই মাদরাসার তিন ছাত্রের এক পায়ে লোহার শিকলে তালাবদ্ধ করে রাখার ঘটনায় তাকে এই বরখাস্ত করা হয়।

ওই মাদরাসার তিন ছাত্রের এক পায়ে লোহার শিকলে তালাবদ্ধ করে রাখার খবর গত সপ্তাহে গণমাধ্যমে প্রকাশ হয়। পরে ইউএনও মো. শিবলী সাদিক ও উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মো. শাহাদাৎ হোসেনের হস্তক্ষেপে ওই তিন ছাত্রকে মুক্ত করা হয়।

মুক্ত হওয়া ছাত্ররা হলেন ইফাদ, ইয়াসিন ও আজিজুল।

এ ব্যাপারে ওই মাদরাসা পরিচালনা কমিটির এক জরুরি সভায় মাদরাসা সুপারকে দুই মাসের জন্য সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। বহিষ্কারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মাদরাসা পরিচালনা পর্ষদের সেক্রেটারি বদরুজ্জামান ভূঁইয়া রতন মাস্টার। 

তিনি বলেন, সভাপতিসহ অন্য সদস্য মিলে জরুরি সভায় এ সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়। তবে এ বিষয়ে তদন্ত কমিটি যে কোনো ধরনের আইনগত ব্যবস্থা নিতে চাইলে কমিটির সব ধরনের সহযোগিতা থাকবে বলেও জানান সেক্রেটারি। 

তিনি আরো বলেন, লোহার শিকলে পায়ে তালাবদ্ধ ওই তিন কিশোর ইফাদ, ইয়াসিন ও আজিজুলকে তাদের অভিভাবক এরই মধ্যে মাদরাসা থেকে নিয়ে গেছে। মো. আরিফুল্লাহ’র এমন কর্মকাণ্ডের পর তারা আর এই মাদরাসায় তাদের সন্তানদের পড়ানোর সাহস পাচ্ছেন না।       

এই ঘটনায় তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। সেখানে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোহাম্মদ জুবের আলমকে প্রধান করা হয়। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নূর-ই-জান্নাত ও উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মো. শাহাদাৎ হোসেন। এই কমিটিকে সাত কর্মদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়। 
 

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ