সুপ্রাচীন ও দৃষ্টিনন্দন শিমুলতলা মসজিদ 

সুপ্রাচীন ও দৃষ্টিনন্দন শিমুলতলা মসজিদ 

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৪:২৫ ২১ মে ২০২০   আপডেট: ১৫:০১ ২১ মে ২০২০

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ব্রিটিশ আমলে নির্মিত দৃষ্টিনন্দন মসজিদটি আজ দাঁড়িয়ে আছে সমহিমায়। এই মসজিদটি সবার চোখের আড়ালে প্রত্যন্ত গ্রামে স্থাপিত হওয়ায় তা নজর কাড়েনি কারো। তবে মসজিদটি প্রয়োজনীয় সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণ করা হলে তাহিরপুর উপজেলার অন্যান্য পর্যটনস্পটের মত এই মসজিদটিও সবার নজর কাড়বে বলে মনে করেন স্থানীয় এলাকাবাসী।

সরেজমিন দেখা যায়, মসজিদটিতে রয়েছে তিনটি বড় গম্বুজ, আটটি পিলার। রয়েছে একটি সুউচ্চ মিনার। মিনারটি খুবই ঝুঁকিপূর্ণ আর মসজিদের আটটি পিলারের মধ্যে একটি পিলার ভেঙে গেছে। এছাড়া সামনের উপরের দিকে কিছু অংশ ভেঙে পড়েছে। মসজিদটি পুরনো হওয়ায় তিনটি গম্বুজের একটির কিছু অংশে ধরেছে ফাটল। মসজিদের ভেতরের উপরের গম্বুজে কারুকাজ ব্রিটিশ আমলের সৌন্দর্য ফুটিয়ে তুলেছে। আছে ব্রিটিশ আমলে নির্মিত মমজিদটিতে তখনকার শিল্পীদের দৃষ্টি নন্দন করু কাজ।

১৯৪৩-৪৪ সালে এই মসজিদটি তৈরি করা হয়েছে। আর মসজিদটি তৈরি করতে মসজিদের পাশেই ইটের ভাটা তৈরি করে ইট আর চুনাপাথরের সংমিশ্রণে নির্মাণ কাজ শুরু করেন তৎকালীন সময়ের তালুকদার পরিবার। তাই নির্মাণের ৭৭ বছরে ঠাঁয় দাঁড়িয়ে আছে। 

এই মসজিদে প্রায় তিনশ মানুষ এক সঙ্গে নামাজ আদায় করতে পারে। এই মসজিদটিতে ব্রিটিশরা যখন ভারত ছেড়ে চলে যায় তখন আল্লাহর নিকট শুকরিয়া আদায় করে নামাজ আদায় করেছিল তখন স্থানীয় মানুষজন তা লোক মুখে জানা যায়। 

সমাজ সেবক মাসুক মিয়া, আশরাফুল ইসলাম, শফিকুল, জমির মিয়াসহ অনেকেই জানান, প্রাচীন ও দৃষ্টিনন্দন এই মসজিদটির মত উপজেলার আর কোনো মসজিদ নেই।  মসজিদটিকে মেরামত করে আধুনিকভাবে আকর্ষণীয় করা যেত তাহলে টাংগুয়ার হাওর, শিমুল বাগান, যাদুকাটা নদী, বারেকটিলাসহ উপজেলার পর্যটন স্পট গুলোর মত এই মসজিদটিও সবার কাছে আকর্ষণীয় হবে। 

উত্তর বড়দল ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কাশেম জানান, শিমুল তলা মসজিদটি ব্রিটিশ আমলে নির্মিত ও দৃষ্টি নন্দন। মসজিদটিকে আধুনিকায়ন করার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করে সংস্কার করা হলে সবাই নজর কাড়বে।               

তাহিরপুর উপজেলা চেয়ারম্যান করুনা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল জানান, ছোট বেলায় মসজিদটির পাশে শিমুলতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে লেখাপড়া করেছি। মসজিদটি উপজেলার সুপ্রাচীন, দৃষ্টি নন্দন ও আকর্ষণ। ব্রিটিশ আমলে নির্মিত এই মসজিদটিকে সরকারিভাবে রক্ষণাবেক্ষণ ও আধুনিকায়ন করার জন্য আমার পক্ষ থেকে সংশ্লিস্ট কর্তৃপক্ষকে জানাব।  

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে