দূরবীনপ্রথম প্রহর

সুনামগঞ্জ মুক্ত দিবস

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম
ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

আজ ৬ ডিসেম্বর। ১৯৭১ সালের এই দিনে সুনামগঞ্জ জেলা পাকিস্তান হানাদার বাহিনী থেকে মুক্ত হয়।

দিবস উপলক্ষে জেলা প্রশাসন ও জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের পক্ষ থেকে র‌্যালি, আলোচনা সভাসহ বিভিন্ন কর্মসূচির আয়োজন করেছে। সুনামগঞ্জ শহর পাকিস্তানী হানাদার মুক্ত করতে মেজর মোত্তালিব, ক্যাপ্টেন যাদব, ক্যাপ্টেন রগুনাথভাট নগরে একটি পরিকল্পনা করেন। পরিকল্পনা অনুযায়ী হানাদার বাহিনীর উপর আক্রমণ করতে মুক্তিযোদ্ধাদের কয়েকটি কোম্পানিতে বিভক্ত করা হয়। এ কোম্পানিকে যোগীর গাঁও, বি কোম্পানিকে হালুয়ারঘাট, সি কোম্পানিকে হাসনগর, ডি কোম্পানিকে ভাদের টেক,ই কোম্পানিকে মল্লিকপুর, এফ কোম্পানিকে কৃষ্ণ তলা অবস্থান গ্রহণ এবং তাদের যাবতীয় রসদ সংগ্রহ করার দায়িত্ব দেয়া হয় এডিএম কোম্পানিকে।

এছাড়া অতিরিক্ত একদল মুক্তিযোদ্ধাকে বনগাঁও সদর দফতরে রাখা হয়। সন্ধ্যার সঙ্গেই যৌথ নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধারা নতুন প্রভাত ছিনিয়ে আনতে পাকিস্তানি বাহিনীর বুকে চূড়ান্ত আঘাত করতে এগিয়ে আসে। পরিকল্পনা অনুযায়ী মুক্তিযোদ্ধারা শহরে প্রবেশ করলে কোথাও পাকিস্তানী বাহিনীর চিহ্ন পাওয়া যায় নি। পাকিস্তানী বাহিনী মাঝ রাতেই সুনামগঞ্জ শহর ছেড়ে পালিয়ে যায়।

এই সংবাদ চারদিকে প্রচার হতে থাকলে জয় বাংলা স্লোগানে মুখরিত হয়ে উঠে জেলার আকাশ বাতাশ। সুনামগঞ্জ মুক্ত ঘোষণার পর শুরু হয় ত্রাণ ও পুনর্বাসনের কাজ। শহর ও পাশের অঞ্চল তত্ত্বাবধানের দায়িত্ব দেয়া হয় মেজর মোত্তালিবকে। যুদ্ধ বিধস্ত সুনামগঞ্জকে মোকাবিলা করতে দেওয়ান রেজা চৌধুরীকে চেয়ারম্যান করে কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির সদস্যরা যুদ্ধ পরবর্তী নানা সমস্যা সমাধানে সচেষ্ট ছিলেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ

daily-bd-hrch_cat_news-2-10