সাবেক স্ত্রী ও শাশুড়িকে অপহরণের চেষ্টা, গণধোলাই 

সাবেক স্ত্রী ও শাশুড়িকে অপহরণের চেষ্টা, গণধোলাই 

পাবনা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২২:৩১ ৭ আগস্ট ২০২০   আপডেট: ২২:৪৫ ৭ আগস্ট ২০২০

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

সাবেক স্ত্রী ও শাশুড়িকে অপহরণ করতে গিয়ে গণধোলাইয়ের শিকার হয়েছেন হাফিজুর রহমান নামে এক যুবক। 

শুক্রবার সকালে সাবেক স্ত্রী নিশাত আক্তারকে আবার ঘরে নিতে না পারায় পাবনার সুজানগর উপজেলার চিনাখরা বাজার থেকে অপহরণের চেষ্টা করে হাফিজুর। এ সময় বাজারের লোকজনের পিটুনি খেয়ে তিনি পালিয়ে যান।  

নিশাতের বাবা আব্দুল হাই মিয়া জানান, দুই বছর আগে মেয়েকে সুজানগর উপজেলার আন্ধারকোটা গ্রামের রহিম খন্দকারের ছেলে হাফিজুরের সঙ্গে বিয়ে দেন। বিয়ের পর মেয়ে জানায় তার স্বামী মাদকাসক্ত। এ কারণে তাদের সংসারে অশান্তি লেগেই থাকত। 

হাফিজুর তার মেয়েকে মারধর করে প্রায়ই তার বাড়ি পাঠিয়ে দিতো। এ নিয়ে নানা দেন দরবার চলেছে বিভিন্ন সময়ে। গত ৩ জুলাই হাফিজুরকে ডিভোর্স দেয় মেয়ে। কিন্তু হাফিজুর মানেনি। তার বাড়ি গিয়েও মেয়েকে একাধিকবার অপহরণ করে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা চালান। 

শুক্রবার সকালে নিশাত ও তার মা রীনা বেগম চিনাখড়া বাজারে যায়। বাড়ি থেকেই তাদের পিছু নেয় হাফিজুর। এ সময় হাফিজুর তার আপন মামা মনছের আলী ও সিরাজকে সহযোগী হিসেবে সঙ্গে নেন। রীনা ও তার মেয়ে নিশাত চিনাখড়া বাজারে যাওয়ার পর হাফিজুর ও তার দুই মামা প্রথমে নিশাতকে জোর করে তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। এতে ব্যর্থ হয়ে তারা রীনা বেগমকে ভ্যানে তুলে নিয়ে যান। এরপর স্থানীয়রা ধাওয়া করলে তারা তাকে ছেড়ে পালিয়ে যান। 

দুলাই ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম শাজাহান জানান, মেয়েটির পরিবারের পক্ষ থেকে তাকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। ছেলেটি বখাটে। গ্রাম পুলিশ পাঠিয়ে ওই ছেলে এবং তার পরিবারকে সতর্ক করা হয়েছে। মেয়েটির পরিবার চাইলে থানায় মামলা করতে পারেন। 

এ ব্যাপারে সুজানগর থানার ওসি বদরুদ্দোজা জানান, শুক্রবার বিকেল ৫টা পর্যন্ত তার কাছে কেউ কোনো অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে