সাকিবের মৃত্যু নিয়ে ধোঁয়াশা!

সাকিবের মৃত্যু নিয়ে ধোঁয়াশা!

চাঁদপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ০৬:১১ ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০   আপডেট: ০৬:১৫ ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার ডুমুরিয়া গ্রামের আব্দুল হালিম মিয়ার ছেলে সাকিব। সাকিব উপজেলার সেঙ্গুয়া বাজারে মিজানের আইসক্রিম ফ্যাক্টরিতে কাজ করতো। কিন্তু গত সাতদিন আগে তিনি মারা যান, তবে তার মৃত্যু রহস্য এখনো উদঘাটন করতে পারেনি পুলিশ।

তদন্ত সংশ্লিষ্টরা তার মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত হতে পারেনি। এদিকে  ফ্যাক্টরির মালিক মিজান বলছেন, কোথায়, কীভাবে সাকিবের মৃত্যু হয়েছে, তা তার জানা নেই।

গত শনিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টার দিকে সাকিব তার বন্ধু মামুনকে সঙ্গে নিয়ে নিজ বাড়িতে এসে ১৫/১৬ মিনিট সময় কাটানোর পর এক ঘণ্টার মধ্যেই পুনরায় বাড়ি ফিরে আসবে বলে বন্ধুসহ বাড়ি থেকে বেরিয়ে পড়ে। বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে তার বন্ধু মামুন ফোনে জানায়, সাকিব মাথা ঘুরে পড়ে গেছে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে চিকিৎসক জানান, হাসপাতালে নেয়ার আগেই সাকিবের মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে সাকিবের মৃত্যুতে তার বাবা-মা পাগল প্রায় হয়ে গেছেন। তারা এলাকার মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরে সাকিবের মৃত্যুর জন্য দায়ী ব্যক্তিদের বিচারের দাবি করছেন। সাকিবের আত্মীয়-স্বজনদের ধারণা, সাকিবকে পরিকল্পিতভাবে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে।

কচুয়া থানার তদন্ত ওসি ইব্রাহীম খলিল জানান, এ ঘটনার পর কচুয়া থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করা হয়েছিল। সে সময় মৃত্যুর রহস্য উদঘাটনের জন্য পুলিশ তার লাশ ময়নাতদন্তের জন্য চাঁদপুর মর্গে পাঠায়। ময়নাতদন্তের রির্পোট প্রাপ্তির ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে কবে নাগাদ ময়নাতদন্তের রির্পোট পাওয়া যাবে তা বলা যাচ্ছে না।

মৃতের পিতা আব্দুল হালিমের দাবি, তার গলার নিচে আঙ্গুলের ছাপ, নাক ভাঙা, মাথার বাম অংশে ফোলা চিহ্ন, মুখ ও জিহ্বার মধ্যে বালু দেখতে পাওয়া যায়। এছাড়াও তার পরিহিত প্যান্টে মলমূত্র দেখতে পাওয়া যায়।

তিনি আরো জানান, থানায় অভিযোগ দায়ের করতে চাইলেও পুলিশ প্রথমে অভিযোগ নেয়নি। পুলিশ বলছে, ময়নাতদন্তের রির্পোট পাওয়া সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম