Alexa সহজ ও সস্তা হবে নেপাল ও ভুটান ভ্রমণ!

সহজ ও সস্তা হবে নেপাল ও ভুটান ভ্রমণ!

প্রকাশিত: ১২:৪৫ ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭   আপডেট: ১৪:৪৭ ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

এতদিন বাংলাদেশ থেকে সহজে বিদেশ ভ্রমণ এর কথা আসলে সবার আগে আসত ভারতে ভ্রমণের কথা। ভারতের সাথে আমাদের বিশাল সীমান্ত থাকায় বিভিন্ন দিক দিয়েই সহজে ভারতে যাওয়া যেত, আর ভ্রমণ করার জন্য তাই সবার সহজ ও প্রথম পছন্দ ছিল ভারত। নেপাল ও ভুটানেও যায় বাংলাদেশের মানুষ, কিন্তু স্থলপথে যাওয়া বেশ কষ্টকর বলে তুলনামূলক কম মানুষই যায়।

সেই অবস্থার হয়ত পরিবর্তন হতে যাচ্ছে। সম্প্রতি জানা গেছে বাংলাদেশ সরকার বাংলাবান্ধা স্থল বন্দরের মাধ্যমে রেলপথে ভারতের উপর দিয়ে নেপাল ও ভুটান এর সাথে রেলওয়ে সংযোগ স্থাপন করার বিষয়ে চিন্তা ভাবনা করছে।

নেপাল ও ভুটান দু`টো দেশই ল্যান্ড-লকড। অর্থাৎ এই দেশ-দুটোকে সম্পূর্ণভাবে স্থলপথে অন্য দেশ ঘিরে রেখেছে। এই দেশগুলোর সমুদ্রপথে কোন রকম যোগাযোগ সম্ভব নয়। একমাত্র স্থলপথে ও আকাশপথে যোগাযোগ সম্ভব। ভারতের সাথে এই দুটো দেশের সীমান্ত রয়েছে এবং সেই কারণে এই দুটো দেশ মূলত বাণিজ্য ও বিভিন্ন বিষয়ে সরাসরি ভারতের উপরে নির্ভরশীল। তাই এই দুটো দেশে ভারতের একচেটিয়া বাজার রয়েছে।

এই অবস্থার পরিবর্তন হতে পারে যদি বাংলাদেশের সাথে নেপাল ও ভুটান বাণিজ্য করতে পারে। এর ফলে ভারতের একচেটিয়া বাণিজ্যের সুযোগ নষ্ট হবে এবং বাংলাদেশ, নেপাল ও ভুটান তিনটি দেশই উপকৃত হবে। বাংলাদেশের জন্য নতুন বাণিজ্যের ক্ষেত্র তৈরি হওয়ার সাথে সাথে নেপাল ও ভুটানে বাংলাদেশি ট্যুরিস্ট এর একটা নতুন জোয়ার শুরু হবে, যারা স্বল্প ঝামেলায় ভ্রমণ করার সুযোগ পেয়ে এই দেশগুলোতে বেড়াতে যাবে। এছাড়াও পারস্পরিক চুক্তির মাধ্যমে নেপাল ও ভুটান বাংলাদেশের সমুদ্র বন্দর ব্যবহার করতে পারবে।

এই নতুন যোগাযোগ স্থাপনের জন্য পঞ্চগড় জেলার তেঁতুলিয়া উপজেলার বাংলাবান্ধা রুটে ৫৭ কিলোমিটার নতুন রেলপথ নির্মাণ করা হবে। এই রুটের সাথে যুক্ত হবার জন্য চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার উপর দিয়ে সোনা মসজিদ ভারতীয় সীমান্ত পর্যন্ত ৩৭ কিলোমিটার নতুন রেলপথ নির্মাণ করতে হবে।

বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর থেকে নেপাল এর দূরত্ব মাত্র ৬১ কিলোমিটার। আবার ভুটান এর সীমান্তও মাত্র ৬৮ কি.মি দূরে অবস্থিত। এর সাথে বোনাস হিসেবে চীন সীমান্তের দূরত্ব মাত্র ২০০ কিলোমিটার। বাংলাবান্ধায় একটি রেলওয়ে ট্রানজিট তৈরি করতে পারলে সেটা ভারত, বাংলাদেশ, নেপাল, ভুটান ও চীন পাঁচটি দেশের মাঝে সৃষ্টি করবে যোগাযোগের নতুন সম্ভাবনা, যেটা একই সাথে পারস্পরিক বাণিজ্য ও অন্যান্য বিষয়কে উৎসাহিত করবে।

এই প্রকল্পের প্রাথমিক যাচাই এর জন্য সময় ধরা হয়েছে ২০১৯ সাল এর জুন মাস পর্যন্ত এবং বাজেট ধরা হয়েছে ১২ কোটি টাকা। দায়িত্ব নিয়ে কাজ করবে বাংলাদেশ রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চল জোন। যাচাই শেষ হলে মূল প্রকল্পে হাত দেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএজে