সরকারের সহযোগিতার আহ্বান বিসিক শিল্প মালিক সংগঠনের

সরকারের সহযোগিতার আহ্বান বিসিক শিল্প মালিক সংগঠনের

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৬:৪৮ ৫ এপ্রিল ২০২০   আপডেট: ১৬:৫৫ ৫ এপ্রিল ২০২০

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে হুমকির মুখে স্থানীয় বাজার নির্ভর বিসিক শিল্প এলাকার কারখানাগুলোয় সহযোগিতার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে বিসিক শিল্প মালিকরা। 

রোববার বাংলাদেশ বিসিক শিল্প মালিক সমিতির ঊর্ধতন সহ-সভাপতি হোসেন এ সিকদার স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ আহবান জানানো হয়েছে। 

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প কর্পোরেশন (বিসিক) এর অধীন ৭৬টি শিল্প এলাকার প্রতিটি কারখানা বর্তমানে বন্ধ রয়েছে। এসব শিল্প কারখানাগুলোয় দক্ষ, অর্ধ-দক্ষ, অদক্ষ মিলিয়ে প্রায় ৫ লাখ ৯০ হাজার ৬২০ জন শ্রমিক কর্মচারী কর্মরত আছেন। আর এসব শিল্প কল-কারখানায় শিল্প মালিকদের প্রায় ২৭ হাজার ৬৮৯ কোটি টাকার আর্থিক বিনিয়োগ রয়েছে। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে বিসিক শিল্প এলাকায় বর্তমানে সব উৎপাদনমুখী কল-কারখানা বন্ধ রয়েছে। 

মূলত স্থানীয় বাজার নির্ভর শিল্পের জন্য কাঁচামালের সরবরাহ না থাকায় উৎপাদন, বিপণন, সরবরাহ, রফতানি কার্যক্রম এখন বন্ধ রয়েছে। উৎপাদন বন্ধ থাকায় কিছুদিন পর শ্রমিকদের বেতন, বোনাস দেয়া শিল্প মালিকদের জন্য অত্যন্ত কষ্টসাধ্য হয়ে পড়বে। 

তাই বিসিক শিল্প এলাকার কারখানাগুলোর পানির বিল আগামী ৬ মাস মওকুফ করার জন্য এবং প্রতি মাসের বিদ্যুৎ ও গ্যাস বিল পরবর্তী ৬ মাস ৩টি সম-বিভাজিত কিস্তিতে পরিশোধের সুযোগ প্রদানের আহ্বান জানান হোসেন এ সিকদার। 

সেই সঙ্গে বিসিক অন্তর্ভূক্ত প্রতিটি শিল্প প্লটের নির্ধারিত একটি সার্ভিস চার্জ রয়েছে, যা আগামী ১ বছরের জন্য মওকুফ ও বিসিক শিল্প নগরীর অন্তর্ভূক্ত প্লটের কিস্তি আগামী ১ বছরের জন্য স্থগিত রাখার জন্য সরকারের কাছে আবেদন জানান তিনি। 

এছাড়া বিজ্ঞপ্তিতে শিল্পোদ্যোক্তাদের এ বছরের আয়কর ও ভ্যাট  যেন আগামী তিন বছরে সমান তিনটি কিস্তিতে সমন্বয়ের মাধ্যমে জরিমানা ছাড়া প্রদান করতে পারে সে বিষয়ে সরকারের বিশেষ বিবেচনার দাবি জানানো হয়। পাশাপাশি বিসিক শিল্প নগরীতে স্থাপিত নতুন শিল্প কারখানা এবং বিএমআরই (ব্যালেন্সিং, আধুনিকায়ন, বিস্তার এবং প্রতিস্থাপন) শিল্প ইউনিটের মূলধনী যন্ত্রপাতি ক্রয়ের জন্য গৃহীত ঋণসহ অন্যান্য ঋণের সুদ আগামী ৬ মাসের জন্য মওকুফ করার সুপারিশ করা হয়।
 

 

ডেইলি বাংলাদেশ/এসএস/জেডআর