রাজস্থানের ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলার সাক্ষী গরু!

রাজস্থানের ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলার সাক্ষী গরু!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৯:৫৪ ১৩ এপ্রিল ২০১৯  

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

অবাস্তব ও কাল্পনিক নানা রূপকথার গল্পে কাজী শেয়াল পণ্ডিতের দরবারে বিচার কাজে পশুপাখিদের সাক্ষী হওয়ার কাহিনী প্রচলিত আছে। কিন্তু বাস্তবে এমন কিছু চিন্তা করা কতটা অবান্তর তা সবারই জানা। কিন্তু ভারতের রাজস্থানে এমনই একটি কাল্পনিক বিষয়কে জীবন্ত বাস্তবে রূপ নিতে দেখা গেল! আর সেটি ঘটেছে রাজস্থানের ম্যাজিস্ট্রেট আদলতে এক মামলার সাক্ষী হিসেবে বাছুরসহ একটি গরুর উপস্থিতির মধ্যদিয়ে!

শুক্রবার রাজস্থানের যোধপুরের এক স্থানীয় আদালতে এমনই একটি ঘটনা ঘটল, যা সাধারণ রূপকথার গল্পেই শুধু পাওয়া সম্ভব! দেশটির গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদে বরাতে এমন তথ্যই জানা যায়।

প্রকাশিত খবর মতে, রাজস্থানের যোধপুরের বাসিন্দা এক পুলিশকর্মী ও একজন স্থানীয় শিক্ষকের মধ্যে গরুর মালিকানা নিয়ে দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হয়। রক পর্যায়ে আদালতে গড়ায় সেটি। স্থানীয় আদালত মামলা নিষ্পত্তিতে ব্যর্থ হলে যোদপুরের ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে পাঠানো হয়। আর সেখানেই প্রথম দফা শুনানিতে সাক্ষী হিসেবে স্বয়ং গরুকেই হাজির করানো হল আদালতে! তবে তার বিতর্কিত ভঙ্গি ও অধিকাংশ ক্ষেত্রে নিরব আচরনের কারণে এদিন মামলা নিষ্পত্তি হয়নি।

সংবাদ সংস্থা এএনআই-এর বরাতে জানা যায়, এই মামলার আইনজীবী রমেশ কুমার বিষ্ণোই জানিয়েছেন, কে গরুর মালিক, তা নিয়ে নিজেদের মধ্যে ঝামেলা করছিল পুলিশকর্মী ওমপ্রকাশ এবং শিক্ষক শ্যাম সিংহ। তারপর দুজনেই বিষয়টি নিষ্পত্তি করতে আদালতের দ্বারস্থ হন। সেখানেই নিজের মালিককে শনাক্ত করতে হাজির করা হয় গরুটিকে। 

মামলার কার্যক্রম শেষ করতে বর্ধিত দিন ধার্য করায়, পরবর্তী দিনে সাক্ষী হিসেবে উপস্থিত হওয়ার জন্য আদলতের সৌজন্যে গরুটিকে নির্ধারিত গোয়ালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। 

এই মামলার শুনানি ফের হবে আগামী ১৫ এপ্রিল। কে গরুর মালিক, তা নিয়ে সিদ্ধান্ত জানাবেন বিচারপতি। সেই রায় প্রদানের ক্ষেত্রে আদালতের প্রয়োজন হলে ফের আদালতে যাবে গুরুত্বপূর্ণ এই সাক্ষী। সূত্র: এএনআই

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআরকে