Alexa রাজবাড়ীতে প্রভাবশালীদের দখলে রেলের ৫৫৫ একর জমি

রাজবাড়ীতে প্রভাবশালীদের দখলে রেলের ৫৫৫ একর জমি

করিম ইসহাক, রাজবাড়ী ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৯:২০ ২৪ ডিসেম্বর ২০১৯   আপডেট: ১৩:৩৯ ২৯ ডিসেম্বর ২০১৯

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

রাজবাড়ীতে রেলওয়ের কিছু অসাধু কর্মকর্তার যোগসাজশে রেলের হাজার কোটি টাকার সম্পত্তি বেদখল হয়ে গেছে। স্থানীয় প্রভাবশলীরা রেলওয়ের ৫৫৫ একর জমি ও ৩৪৬টি স্টাফ কোয়ার্টার দখল করে গড়ে তুলছেন বসত বাড়ি, মার্কেট ও মাছের খামার।

রাজবাড়ীর রেলওয়ে বিভাগের তথ্যমতে, জেলায় রেলওয়ের জমির পরিমান ১৭০৩ একর। এরমধ্যে রেলওয়ের দখলে আছে ১০৪০ একর জমি। নদীগর্ভে বিলিন হয়েছে ৯১ একর জমি। জেলা প্রশাসন ব্যবহার করছে ১৫ একর। লীজ দেয়া হয়েছে ২ একর। আর বাকী ৫৫৫ একর জমি রয়েছে বেদখলে। এছাড়াও রেলের ৪৬৫টি কোয়ার্টারের মধ্যে ৩৪৬টি রয়েছে প্রভাবশালীদের দখলে।

সরেজমিনে শহরের ফুলতলা এলাকায় গিয়ে বাদল নামে এক বাসিন্দার সঙ্গে কথা বললে তিনি জানান, এক সময় রেলের শহর হিসেবে পরিচিত ছিলো রাজবাড়ী। ওই সময় এখানে রেলওয়ের রমরমা অবস্থা থাকলেও এখন নাজুক অবস্থা। কর্তৃপক্ষের উদাসীনতায় বেদখল হয়েছে রেলওয়ের স্টাফ কোয়ার্টার। এসব সরকারি কোয়ার্টার দখল করে আবার কেউ কেউ ভাড়াও দিয়েছেন। কেউ কেউ আবার এসব কোয়ার্টারেই গড়ে তুলেছেন মাদকের আখড়া। এছাড়াও দিনের পর দিন খোলা জায়গায় নষ্ট হচ্ছে কোটি টাকার রেলওয়ে ওয়াগন।

উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী রাজবাড়ীর সাধারন সম্পাদক আজিজুল হাসান খোকা জানান, এক সময় রাজবাড়ী থেকে শিয়ালদহ ট্রেন চললেও এখন মৃত্য প্রায় এই রুট। তাছাড়া রাজবাড়ী থেকে খুব সহজেই-ঢাকা-রাজশাহী ও খুলনা এই তিন বিভাগের সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়। এখন সেই অবস্থা নেই। এক সময় সচল ছিলো এসব রুটে যোগাযোগ। এখন যাত্রী থাকলেও নেই সেবার মান। এমনটি অনেক সময় টিকেট চেক করার মতো লোকও খুঁজে পাওয়া যায় না।

শহরের নিউ কলোনী এলাকায় রেলওয়ের কোয়ার্টারে বসবাসরত আলী আকবর ফকির বলেন, একসময় আমার দাদা রেলওয়েতে চাকরি করতেন। সেই সুধাদে এই কোয়ার্টারটি আমি পেয়েছি। এই কোয়ার্টার এখন বসবাসের অযোগ্য হয়ে গেছে। তাই পাশেই একটি পাকা ঘর তুলে বসবাস করছি। তবে জমি রেলওয়ে থেকে কোন লীজ নেয়া হয়নি।

রেলওয়ে শ্রমিকলীগ রাজবাড়ী শাখার সভাপতি মো. মোসলেম উদ্দিন জানান, নতুন চাকরি যোগদানকারী ২৮ জন কর্মকর্তার জন্য কাগজে কলমে ২৮টি বাসা বরাদ্দ হয়েছে ছয় মাস আগে। কিন্তুু এখনো বাসা বুঝে পাননি। বাসা-বাড়ি না থাকার কারনে খুবই বিপদে আছেন তারা। এমনকি অবৈধভাবে কোয়ার্টার দখলের পাশাপাশি প্রভাবশালীরা ঘর তুলে আবার ভাড়াও দিয়েছেন। বিষয়টি পুলিশ প্রশাসন ও রেলওয়ে কর্মকর্তাদের বার বার বলেও কোন লাভ হচ্ছে না। কোন কর্মকর্তাই কোন উদ্যোগ নিচ্ছেন না।

আর রেলওয়ের ভু-সম্পত্তির দায়িত্বে থাকা ১৫ নং কাচারীর ফিল্ড কানুন গো মো. সাজ্জাদুল ইসলাম জানান, অচিরেই রাজবাড়ীতে রেলওয়ের ডিভিশন করা হবে। ডিভিশনের কার্যক্রম শুরু হলে এসব বেদখল হওয়া সম্পত্তি দখলে আনবে রেলওয়ে বিভাগ। তার কার্যক্রম হিসেবে কিছুদিন আগে রেলমন্ত্রী এলাকা পরিদর্শন করে গেছেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এস/এসএএম