Alexa যে কারণে ব্যর্থ ভারতের ‘চন্দ্রযান ২’

যে কারণে ব্যর্থ ভারতের ‘চন্দ্রযান ২’

বিজ্ঞান ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ০৯:০৭ ৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আপডেট: ০৯:০৮ ৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

একেবারে শেষ সময়ে এসে ব্যর্থ ভারতের ‘চন্দ্রযান ২’। চাঁদের একদম সন্নিকটে এসে যানটির ল্যান্ডার ‘বিক্রম’-এর সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করতে পারেননি দেশটির বিজ্ঞানীরা।

চন্দ্রযানটির স্বপ্নের মতো যাত্রা শুরু হয়েছিল ঠিক ৪৭ দিন আগে। চন্দ্রযানের ভেতরে ছিল রোভার প্রজ্ঞান। একেবারে দিনক্ষণ মেপে চাঁদের দক্ষিণ মেরুর কাছে নামছিল যানটি। যেখানে এখনো কোনো দেশের যান পা রাখেনি। কয়েক ঘণ্টা পরে দক্ষিণ মেরুর কাছে ভোর হওয়ার কথা। ঠিক ছিল তার আগেই খুলে যাবে বিক্রমের র‌্যাম্প। তার ওপর দিয়ে গড়িয়ে নামবে প্রজ্ঞান।

কথা ছিল, ভোরের আলো ফুটলে সেই আলো সোলার প্যানেলে মেখে জেগে উঠবে প্রজ্ঞান। ভোর ৫টা ২৯ থেকে প্রতি মিনিটে ৬০ সেন্টিমিটার করে এগোবে। তারপর বিক্রম প্রজ্ঞান শুরু করবে খোঁজ, কী কী আছে চাঁদের মাটিতে ও চাঁদের উপরে! অরবিটার তো আগে থেকেই ছবি তুলে চলেছে চাঁদের। যা দিয়ে তৈরি হবে পৃথিবীর একমাত্র উপগ্রহের ত্রিমাত্রিক মানচিত্র।

কিন্তু কী হল চন্দ্রযান ২-এর? জানে না ইসরোও। চলছে তথ্য বিশ্লেষণ। তবে প্রাথমিক ভাবে জানানো হয়েছে, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে তার গতিবেগ কমাতে পারেনি চন্দ্রযানটি। যার কারণে সফট ল্যান্ডিং হয়নি বলে মনে করা হচ্ছে। পাশাপাশি জানা যাচ্ছে, ঘণ্টায় প্রায় ৬ হাজার কিমি গতিবেগে চাঁদের ভূপৃষ্ঠে আছড়ে পড়েছে চন্দ্রযানের ল্যান্ডার। যেখানে ৭ কিমি গতিবেগ থাকার প্রয়োজন ছিল।

শেষের ১৩ মিনিটেই তীরে এসে ডুবল চন্দ্রযান-২। যে সময় চাঁদের মাটিতে নামার কথা, সেই সময় অতিক্রান্ত হওয়ার পরও যোগাযোগ করা যাচ্ছে না তার সঙ্গে। যেহেতু এই অবতরণ প্রক্রিয়া একেবারেই স্বয়ংক্রিয়, এখানে কোনো হস্তক্ষেপের সুযোগও নেই। বিজ্ঞানীরা বলছেন, ভারত থেকে মহাকাশে কম্যান্ড পৌঁছনো মাত্রই কাজ শুরু করে ল্যান্ডার। কিন্তু শেষ চারশ’ মিটার, যাকে বলা হয় ‘ফাইন ব্রেকিং ফেজ’, সেখানেই বাঁধল গোলমাল।

ডেইলি বাংলাদেশ/এনকে