Alexa মেয়র আইভীর ওপর হামলা: ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা

মেয়র আইভীর ওপর হামলা: ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ০৩:২৪ ৬ ডিসেম্বর ২০১৯  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীর ওপর হামলার ঘটনায় অস্ত্রধারী নিয়াজুল ইসলাম খানসহ নয়জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। বুধবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ফাহমিদা খাতুনের আদালত অভিযুক্ত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে এফআইআর গ্রহণ করে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসিকে নির্দেশ দেন।

এ ব্যাপারে নারায়ণগঞ্জ কোর্ট পুলিশের পরিদর্শক আসাদুজ্জামান জানান, বাদীর অভিযোগ, এফআইআর হিসেবে গণ্য করে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসিকে নির্দেশ দেয় আদালত। 

নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মো. আসাদুজ্জামান জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে আদালতের নির্দেশানুযায়ী থানায় মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। এ বিষয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কের ফুটপাতে হকার বসানো নিয়ে মেয়র আইভীকে হত্যাচেষ্টার ঘটনার ২২ মাস ১৮ দিন পর অভিযুক্ত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হলো। মামলার আসামিরা হলেন, অস্ত্র নিয়ে হামলাকারী নিয়াজুল ইসলাম, অস্ত্র প্রদর্শনকারী শাহ নিজাম, জাকিরুল আলম হেলাল, শাহাদাৎ হোসেন, জুয়েল হোসেন, মিজানুর রহমান, জানে আলম, নাছির উদ্দিন ও চঞ্চল মাহমুদ। এই নয়জন ছাড়াও মামলায় অজ্ঞাতনামা আরো ৯০০ থেকে ১০০০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

মামলার বাদী ও সিটি কর্পোরেশনের আইন কর্মকর্তা আবদুস সাত্তার জানান, মেয়র আইভীকে হত্যাচেষ্টার ঘটনায় থানায় অভিযোগ দেয়া হলেও মামলা নেয়নি পুলিশ। পরে এসপি বরাবর লিখিত অভিযোগ দিলেও ব্যবস্থা না নেয়ায় উচ্চ আদালতে রিট পিটিশন দায়ের করা হয়। ওই রিট পিটিশনের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে শুনানি শেষে উচ্চ আদালত গত ১১ নভেম্বর নারায়ণগঞ্জের চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতকে মামলা গ্রহণ করে অভিযুক্ত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের আদেশ দেন।

মামলায় বাদী উল্লেখ করেন, ২০১৮ সালের ১৬ জানুয়ারি বিকেল ৪টায় সিটি মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী কাউন্সিলর ও অন্যদের সঙ্গে নিয়ে নগর ভবন থেকে পদযাত্রা শুরু করেন। বঙ্গবন্ধু সড়কের ফুটপাত হকারমুক্ত রাখা এবং পথচারীদের নির্বিঘ্নে চলাচলের স্বার্থে গণসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে হেঁটে প্রচারণা শুরু করেন মেয়র। বিকেল সাড়ে ৪টায় পদযাত্রাটি বঙ্গবন্ধু সড়কের চাষাড়া সায়েম প্লাজার সামনে এলে পূর্বপরিকল্পিতভাবে বিবাদীরা পিস্তল, রিভলবার, শটগান ও দেশি অস্ত্র নিয়ে মেয়র আইভীকে হত্যার উদ্দেশ্যে চারদিক থেকে হামলা করে। বৃষ্টির মতো ইট-পাটকেল ছোড়া হয়। মেয়রসহ সঙ্গে থাকা লোকজনকে হত্যার উদ্দেশ্যে এই হামলা চালানো হয়। হামলায় আইভীসহ ৪৩ জন গুরুতর আহত হন।

ছবি: সংগৃহীতমামলায় বলা হয়েছে, ওই ঘটনায় মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। ঘটনার চার দিন পর ২০১৮ সালের ২২ জানুয়ারি সুনির্দিষ্ট প্রমাণসহ নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় এজাহার দাখিল করা হয়। পরে জানা যায়, থানা কর্তৃপক্ষ সেটি মামলা হিসেবে গ্রহণ না করে জিডি হিসেবে নথিভুক্ত করেছে। কোনো ধরনের আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণ না হওয়ায় ২০১৯ সালের ৭ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ এসপি কার্যালয়ে অভিযোগ দায়ের করা হয়। তখন এসপি নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসিকে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন। কিন্তু সদর মডেল থানার পুলিশ কোনো ধরনের ব্যবস্থা নেয়নি।

উল্লেখ্যে, ২০১৮ সালের ১৬ জানুয়ারির ওই ঘটনায় জেলা প্রশাসন তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছিল। ঘটনার পর ২২ মাসেও জেলা প্রশাসনের তদন্ত কমিটি প্রতিবেদন দাখিল করেনি। এরই মধ্যে তদন্ত কমিটির তিন কর্মকর্তা অন্যত্র বদলি হয়েছেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম