মেঘালয়ে নাগরিকত্ব আইন নিয়ে সংঘর্ষ, নিহত ১

মেঘালয়ে নাগরিকত্ব আইন নিয়ে সংঘর্ষ, নিহত ১

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৩:৪৭ ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে এবার সংঘর্ষ হয়েছে ভারতের মেঘালয় রাজ্যে। সেখানে খাসি ছাত্র সংগঠন (কেএসইউ) এবং অ-উপজাতিদের সম্প্রদায়ের সংঘর্ষে এক জন নিহত হয়েছেন। নিহত যুবক খাসি ছাত্র সংসদের সদস্য বলে জানা গেছে।

সীমান্ত সংলগ্ন জনজাতিপূর্ণ উত্তর পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলোতে বাইরে থেকে প্রবেশের ক্ষেত্রে বিশেষ অনুমতি লাগে। সেটি ‘ইনার লাইন পারমিট’ (আইএলপি) নামে পরিচিত। সিএএ চালু হলে এই ‘ইনার লাইন পারমিট’ নিয়মের ওপর প্রভাব পড়বে বলে আশঙ্কা করছে সেখানকার বাসিন্দারা। 

ফলে শুক্রবার সন্ধ্যায় পূর্ব খাসি পার্বত্য অঞ্চলের ইছামতি এলাকায় এ নিয়ে বিশেষ বৈঠক করে কেএসইউ এবং অ-উপজাতিদের প্রতিনিধি দল। সে সময়েই দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয় বলে জানা গেছে।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, সংঘর্ষ চলাকালীন বাজার সংলগ্ন একটি খড়ের গাদায় আগুন ধরিয়ে দেয় বিক্ষোভকারীরা। এছাড়া গাড়ি ভাঙচুরসহ বেশ কয়েকটি বাড়িতেও আগুন জ্বালিয়ে দেয়ার চেষ্টা করে তারা। বিক্ষোভ ঠেকাতে গিয়ে আহত হয়েছেন পুলিশ কর্মকর্তাসহ আরো অনেকে।

এ বিক্ষোভের জেরে মেঘালয়ের ছয়টি জেলায় ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এছাড়া শিলং এবং তার সংলগ্ন এলাকাগুলোতে কারফিউ জারি করা হয়েছে বলেও জানা গেছে।

শিলং ও তার আশেপাশের এলাকায় আইন শৃঙ্খলার মারাত্মক অবনতি হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছিল। সোশ্যাল মিডিয়ার অপব্যবহার করে সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষ ছড়িয়ে আশঙ্কায় পূর্ব খাসি পাহাড়, পশ্চিম খাসি পাহাড়, দক্ষিণ পশ্চিম খাসি পাহাড়, রি ভোই, পূর্ব জৈন্তিয়া পাহাড় এবং পশ্চিম জৈন্তিয়া পাহাড় জেলায় মোবাইল ইন্টারনেট পরিষেবা নিষিদ্ধ করেছে কর্তৃপক্ষ।

এর আগে গত ডিসেম্বরেও নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে মেঘালয়। রাজ্যে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে রাজধানী শিলংয়ের কিছু অংশে অনির্দিষ্টকালের জন্যে কারফিউ জারি করা হয় সেখানে। এছাড়া গোলযোগপূর্ণ এলাকার মোবাইল ইন্টারনেট ও এসএমএস পরিসেবাও স্থগিত করে দেয়া হয় তখন।

সূত্র- আনন্দবাজার, কলকাতা টাইমস

ডেইলি বাংলাদেশ/এসএমএফ