Alexa মৃত্যুর কত পরে একটি দেহ নিস্ক্রিয় হয়?

মৃত্যুর কত পরে একটি দেহ নিস্ক্রিয় হয়?

আয়েশা পারভীন ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৭:১৩ ১৬ মে ২০১৯  

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

যার প্রাণ আছে, তার মৃত্যু নিশ্চিত। সবাইকে একদিন মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতেই হবে। এটা খোদাপাকের শাশ্বত চিরন্তন বিধান। মৃত্যু থেকে অনিবার্য সত্য আর কিছুই হতে পারে না। যার সূচনা হয়েছে তার সমাপ্তি ঘটবেই। এ অমোঘ বিধানের কোনো পরিবর্তন পরিবর্ধন নেই। তবে মৃত্যুকে নিয়ে অনেক ধরনের ব্যাখ্যা আমরা শুনে থাকি। আমরা মৃত্যুকে ঘিরে কেউ রহস্য রচনা করি, কেউবা মৃত্যুকে একটা ভয়ের ব্যাপার বলেই মনে করি। 

মৃত্যু আসলে কী? এক আদিম রহস্যের নাম মৃত্যু। অব্যর্থ, দুর্জয়, অনিবার্য। চিরকালীন বিস্ময়— কারো কাছে সে চূড়ান্ত আতঙ্ক। কারো কাছে ‘মরণ রে, তুঁহু মম শ্যাম সমান’। সৃষ্টির শুরু থেকে মানুষ বুঝতে চেয়েছে, মৃত্যু আসলে কী? তবে জীবন ও মৃত্যুর পার্থক্য সাদা ও কালোর মধ্যকার পার্থক্যের মতো সরল নয়। মূলত মৃত্যুর কোনো একক সংজ্ঞা নেই। এমনকি নেই কোনো সুনির্দিষ্ট মুহূর্ত। কখনো কখনো অনেক সরল প্রশ্নের উত্তর দেয়াটা সবচেয়ে কঠিন। এমনই এক প্রশ্ন হলো মৃত্যু কী, কখন হয়?

তবে চিকিৎসকেরা একটা সময় এসে রোগীকে মৃত বলে ঘোষণা করেন, যখন হৃদযন্ত্র, ফুসফুস ও মস্তিষ্কের ক্রিয়াকলাপ পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়। তবে কখন চূড়ান্ত মৃত্যু ঘটে, তার উত্তর এখনো কোনো চিকিৎসক বা গবেষক দিতে পারেননি। জীববিজ্ঞানের ভাষায় বলতে গেলে, মৃত্যুর কোনো সুনির্দিষ্ট একক মুহূর্ত নেই। শেষকালে মানুষ ধারাবাহিকভাবে ছোট ছোট মৃত্যুর ভেতর দিয়ে যায়। আলাদা আলাদা টিস্যু আলাদা আলাদা সময়ে মারা যায়। তবে ২০১৭ সালে নিউইয়র্ক শহরের এনওয়াইইউ ল্যাংগোন স্কুল অব মেডিসিনের ক্রিটিক্যাল কেয়ার অ্যান্ড রেসাসিটেশন রিসার্চ বিভাগের প্রধান স্যাম পারনিয়া এক গবেষণায় দাবি করেন, তাত্ত্বিকভাবে কোনো ব্যক্তিকে মৃত ঘোষণা করা হলেও একেবারে ফুরিয়ে যান না তিনি। তার চেতনা নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত সজাগ থাকে এবং তিনি অন্যের কথা শুনতে পান, অনেক কিছু বুঝতে পারেন। তবে ওই সময় তার কিছু করার মতো শক্তি বা সামর্থ্য থাকে না।

আজ ডেইলি বাংলাদেশের পাঠকদের মৃত্যুর নির্দিষ্ট কোনো সংজ্ঞা দিতে না পারলেও এই নিয়ে কিছু সন্ধান দেয়ার চেষ্টা করব-

পৃথিবীতে হৃদরোগেই বেশিরভাগ মানুষ মারা যায়। অন্য এমন কোনো রোগ নেই, যেটাই এত মানুষের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

কম বয়সী পুরুষদের অধিকাংশই দুর্ঘটনায় মারা যায়। কারণ তারা চলার পথে ফোন বা বিভিন্ন অসাবধানতায় রাস্তা পার হয়। এটাই তাদের বড় কাল হয়।

আরেক গবেষণায় জানা গেছে, সন্তান প্রসব করতে গিয়ে অল্পবয়সী মহিলাদের অধিকাংশই মারা যায়।

এদিকে, সম্প্রতি আমেরিকার এক গবেষণায় উঠে এসেছে, এক জন শিশু জন্ম নিলে, দুজন মানুষের মৃত্যু হয়। অর্থাৎ, প্রতি সেকেণ্ডে যত জন শিশু জন্ম নেয়, তার দ্বিগুণেরও বেশি মানুষ মারা যায়।

জানা গেছে, মৃত্যুর চার ঘণ্টা পরে দেহের পেশিগুলোতে রাসায়নিক বিক্রিয়ার ফলে সংকোচন ঘটে। এরপর দেহ ধীরে ধীরে শক্ত হতে শুরু করে। একে ‘রিগর মর্টিস’ বলে। কিন্তু ৩৬ ঘণ্টা পরে রিগর মর্টিস উধাও হতে শুরু করে। এরপর নিথর দেহটি পুরোপুরি নিষ্ক্রিয় হয়ে যায়।

মৃত্যুর পরে একটি দেহের অগ্ন্যাশয় ও পাচনতন্ত্রের অন্যান্য অংশ হজমের সহায়ক এনজাইমে পূর্ণ হয়ে যায়। এতে ওই অঙ্গগুলো ‘হজম’ হতে শুরু করে। তার পরে পুরো দেহতেই এই প্রক্রিয়া ছড়িয়ে পড়ে। এর নাম ‘অটোলাইসিস’।

মৃত্যুর পরে নখের কোনো বৃদ্ধি ঘটে না। নখ একেবারে আগের মতই থাকে।

তবে ফরেনসিক বিশেষজ্ঞরা মৃতদেহ দেখে একটা জিনিস ঠিকই বুঝতে পারেন, মূলত পোকার চরিত্র দেখে মোটামুটিভাবে তারা বলতে পারেন, মৃত্যু ঠিক কতক্ষণ বা কত দিন আগে হয়েছে। এইভাবে তারা মৃত ব্যক্তির সব কিছু সনাক্ত করেন।

এছাড়া একজন ব্যক্তি প্রতিদিন খানিকটা করে মারা যায়। কারণ প্রতিদিন দেহে প্রায় ৫০ বিলিয়ন কোষের মৃত্যু হয়। এতে করে আসতে আসতে মানুষ মৃত্যুর দিকে ঢলে পড়ে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এসআই

Best Electronics

Best Electronics
শিরোনামকুমিল্লার বাগমারায় বাস-অটোরিকশা সংঘর্ষে নারীসহ নিহত ৭ শিরোনামবন্যায় কৃষিখাতে ২শ’ কোটি টাকার বেশি ক্ষতি হবে না: কৃষিমন্ত্রী শিরোনামচামড়ার অস্বাভাবিক দরপতনের তদন্ত চেয়ে করা রিট শুনানিতে হাইকোর্টের দুই বেঞ্চের অপারগতা প্রকাশ শিরোনামচামড়া নিয়ে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সমাধানে বিকেলে সচিবালয়ে বৈঠক শিরোনামডেঙ্গু: গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি ১৭০৬ জন: স্বাস্থ্য অধিদফতর শিরোনামডেঙ্গু নিয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিবেদন দুপুরে আদালতে উপস্থাপন শিরোনামডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা কমছে: সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের পরিচালক শিরোনামইন্দোনেশিয়ায় ফেরিতে আগুন, দুই শিশুসহ নিহত ৭ শিরোনামআফগানিস্তানে বিয়ের অনুষ্ঠানে বোমা হামলা, নিহত বেড়ে ৬৩