মুসলিমদের নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্যে তোপের মুখে রায়ানএয়ারের প্রধান

মুসলিমদের নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্যে তোপের মুখে রায়ানএয়ারের প্রধান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৯:১৭ ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০   আপডেট: ১৯:২২ ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

মুসলিমদের নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করে তোপের মুখে পড়েছেন আয়ারল্যান্ড ভিত্তিক বেসরকারি বিমান পরিবহন সংস্থা রায়ানএয়ারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মাইকেল ও’লিয়ারি।

সম্প্রতি লন্ডন টাইমসকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বিমানবন্দরে সন্ত্রাসী হামলা ও যাত্রী নিরাপত্তা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘সন্ত্রাসীরা সাধারণত মুসলিমই হয়। তাই মুসলিম যাত্রীদের বিমানবন্দরে বেশি নিরাপত্তা পরীক্ষার ভেতর দিয়ে যাওয়া উচিত।’

এ মন্তব্যের পরপরই তাকে নিয়ে সামাজিকমাধ্যম থেকে শুরু করে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে তীব্র সমালোচনার শুরু হয়। এমনকি তার নিজ দেশ আয়ারল্যান্ডের নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরাও তার এই ইসলাম বিদ্বেসী মন্তব্যের কড়া সমালোচনা করে।

মাইকেল আরো বলেন, ‘হুমকি মূলত মুসলিমদের থেকেই আসে।’ তবে শিশু ও পরিবার নিয়ে ভমণকারীদের এই নিরাপত্তা পরীক্ষার ক্ষেত্রে ছাড় দেয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

মাইকেল এমন একটি সময় বিতর্কিত এই মন্তব্যটি করলেন যখন জার্মানিতে সম্প্রতি এক ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলায় অন্তত আট মুসলিমের মৃত্যু হয়েছে।

মুসলিম বিভিন্ন সংগঠনসহ অনেক নাগরিক পরিষদ তার ওই মন্তব্যকে ‘নিম্নরুচির বর্ণবাদের প্রকাশ’ বলে অভিহিত করেছে।

রায়ানএয়ারের সিইও যে এবারই প্রথম এমন বর্ণবাদী মন্তব্য করলেন তা নয়। এর আগেও বহুবার তিনি বেফাঁস ও বর্ণবাদী মন্তব্যের কারণে তীব্র সমালোচনা হজম করেছেন।

ফ্লাইটের টয়লেটে যাওয়ার ওপর বাড়তি কর এবং স্থূলকা যাত্রীদের কাছ থেকে ‘ফ্যাট ট্যাক্স’ আদায়ের প্রস্তাব করায় তাকে তীব্র সমালোচিত হতে হয়েছিলো।

রায়ানএয়ারের সিইও’র নতুন এই মন্তব্যকে ‘ইসলামফোবিয়া’ (ইসলাম ভীতি) ছড়ানোর অপচেষ্টা বলে অভিযোগ তুলেছেন ব্রিটেনের মুসলিম কাউন্সিলের মুখপাত্র ।

যুক্তরাজ্যের প্রধান বিরোধী দল লেবার পার্টির এমপি খালিদ মাহমুদ বলেছেন, মাইকেলের এই মন্তব্য ‘বর্ণবাদে উসকানিমূলক’।

যুক্তরাজ্যের একটি মানবাধিকার পর্যবেক্ষক সংস্থা বলেছে, মাইকেলের এই মন্তব্য জঘন্য এবং হিংসাত্মক।

রায়ানএয়ারের প্রধানের এই মন্তব্যে অনেকে তার এয়ারলাইন বয়কটের ডাকও দিয়েছেন।

প্রখ্যাত সাংবাদিক হেইডি এন. মুর এ বিষয়ে বলেন, সিইও পর্যায়ে এমন ইসলামফোবিয়া চর্চা সত্যিই অবিশ্বাস্য। এবার বুঝুন, দুনিয়ায় এমন আরও অনেকে মহাক্ষমতাধর আছে, যারা কিনা বর্ণবাদ লালন করে এবং নিজেদের বর্ণবাদী দৃষ্টিভঙ্গি ফলাতে পারে যেকোনো সময়।

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী