মুসলমানদের প্রাণ বাঁচিয়ে মৃত্যুমুখে প্রেমকান্ত

মুসলমানদের প্রাণ বাঁচিয়ে মৃত্যুমুখে প্রেমকান্ত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৫:০৯ ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০   আপডেট: ১৫:১৮ ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০

ছবি: প্রেমকান্ত বাঘেল

ছবি: প্রেমকান্ত বাঘেল

একদিকে দিল্লির উগ্র হিন্দুত্ববাদীরা মুসলমানদের অসংখ্য বাড়িঘর-দোকানপাটে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে। অপরদিকে কয়েকজন হিন্দু নিজের জীবন বাজি রেখে মুসলিমদের পাশে দাঁড়িয়েছেন।

তেমনই একজন প্রেমকান্ত বাঘেল। তিনি বলেন, দিল্লির শিব বিহার এলাকায় দীর্ঘদিন ধরেই হিন্দু-মুসলিম সম্প্রদায়ের মধ্যে সুসম্পর্ক আছে। কিন্তু সম্প্রতি দুর্বৃত্তরা তার প্রতিবেশী মুসলমানদের বাড়িতে পেট্রোলবোমা দিয়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। এ খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই বেরিয়ে আসেন এ হিন্দু ব্যক্তি। জীবন বাজি রেখে ঝাঁপিয়ে পড়েন প্রতিবেশীদের প্রাণরক্ষায়। আগুনে জ্বলতে থাকা ঘরগুলো থেকে বের করে আনেন আটকে পড়া ব্যক্তিদের।

বন্ধুর বয়স্ক মাকে জ্বলন্ত ঘর থেকে বের করতে গিয়ে নিজেই গুরুতর দগ্ধ হন প্রেমকান্ত। নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মুসলিমদের বের করে আনলেও আর কেউই তাদের হাসপাতালে নিতে গাড়ি দেননি। অ্যাম্বুলেন্স ডাকা হয়েছিল, কিন্তু সেটিও পৌঁছায়নি।

প্রেমকান্তের শরীরের অন্তত ৭০ শতাংশ পুড়ে গেছে। কিন্তু হাসপাতালে নেয়ার ব্যবস্থা করতে না পারায় সারারাত সেভাবেই বসে থাকতে হয়। পরিবারের সদস্যরা তাকে বাঁচানোর আশাও ছেড়ে দিয়েছিলেন। অবশেষে পরদিন সকালে কোনোরকমে স্থানীয় হাসপাতালে নেয়া হয় আহত প্রেমকান্তকে। তার চিকিৎসা চলছে, তবে অবস্থা এখনো সঙ্কটাপন্ন।

এদিকে, দাঙ্গায় ক্ষতিগ্রস্ত মুসলিমদের পাশে দাঁড়িয়েছে দিল্লির শিখ সম্প্রদায়ও। গৃহহীনদের জন্য তারা গুরদ্বারার দরজা খুলে দিয়েছে। এছাড়া, মুসলিমদের পাশে দাঁড়িয়েছেন অশোকনগরের হিন্দুরাও। তারা ক্ষতিগ্রস্ত বেশ কয়েকটি মুসলিম পরিবারকে নিজেদের বাড়িতে থাকার ব্যবস্থা করে দিয়েছেন বলে জানা গেছে।

ভ্রাতৃত্বের নজির রেখেছেন মুসলিমরাও। বুধবার হাতে হাত রেখে মানববন্ধন করে চাঁদবাগের একটি মন্দির ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করেন সেখানকার মুসলমানরা।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএস