Alexa মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজের ১৩তম পুনর্মিলনী

মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজের ১৩তম পুনর্মিলনী

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৯:২৩ ২৪ জানুয়ারি ২০২০  

সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজে ১৩তম পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে ক্যাডেটদের কুচকাওয়াজ পরিদর্শন করেন- আইএসপিআর

সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজে ১৩তম পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে ক্যাডেটদের কুচকাওয়াজ পরিদর্শন করেন- আইএসপিআর

মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজে তিন দিনব্যাপী ১৩তম পুনর্মিলনীর দ্বিতীয় দিন আজ। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথি মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজে এসে পৌঁছালে তাকে অভ্যর্থনা জানান জিওসি ৯ পদাতিক ডিভিশন ও এরিয়া কমান্ডার, সাভার এরিয়া মেজর জেনারেল মো. আকবর হোসেন, কলেজের অধ্যক্ষ বিমান রায় চৌধুরী, সভাপতি মির্জাপুর এক্স ক্যাডেট অ্যাসোসিয়েশন (এমইসিএ) ও অতিথিরা। 

শুক্রবার আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদফতরের (আইএসপিআর) এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। পরে প্রধান অতিথি এমইসি পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন এবং কুচকাওয়াজের সালাম গ্রহণ করেন।

আইএসপিআর জানায়, সেনাবাহিনী প্রধান কুচকাওয়াজে অংশগ্রহণকারী ক্যাডেট ও সাবেকদের উদ্দেশ্যে ভাষণ দেন। বক্তব্যের শুরুতে তিনি গভীর শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। পাশাপাশি তিনি শ্রদ্ধা জানান ত্রিশ লাখ শহীদদের- যাদের অসামান্য অবদানে অর্জিত হয়েছে স্বাধীন বাংলাদেশ। 

সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ বর্তমান ও সাবেক ক্যাডেটদের সফলতা ও উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি কামনা করেন। এরপর তিনি ক্যাডেটদের দ্বারা বর্ণাঢ্য চিত্র প্রদর্শনী ও বিজ্ঞান মেলার আয়োজনের শুভ সূচনা করেন। পরে প্রধান অতিথি সাবেক ক্যাডেটদের পুনর্মিলনীর স্মৃতি রক্ষার্থে কলেজের শহীদ মিনার এলাকায় বৃক্ষরোপন করেন।

পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে সামরিক ও অসামরিক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা, স্থানীয় বিশিষ্ট ব্যক্তি, সাবেক অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষ ও অনুষদ সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, তিন দিনব্যাপী মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান গতকাল শুরু হয়। প্রতি চার বছর পর পর এ পুনর্মিলনীর আয়োজন করা হয়ে থাকে। এতে বন্ধুত্ব ও ভ্রাতৃত্বের বন্ধন এক অনাবিল আনন্দের সঙ্গে দৃঢ় হয়। পারস্পরিক সহমর্মিতা, সহযোগিতা ও সংবেদনশীলতার এক অপূর্ব মেলবন্ধন তৈরি হয় পুনর্মিলনীতে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআরকে