Alexa মায়ের গলা কাটলো ছেলের দোকানের কর্মচারী 

মায়ের গলা কাটলো ছেলের দোকানের কর্মচারী 

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৮:৪৯ ২৮ নভেম্বর ২০১৯   আপডেট: ১৮:৫০ ২৮ নভেম্বর ২০১৯

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে শতবর্ষী বৃদ্ধা আহাতন বেওয়াকে গলা কেটে হত্যা করেছে তারই ছেলের দোকানের কর্মচারী মো. বাবু আহমেদ ওরফে বাদল।

টাঙ্গাইল বিচারিক হাকিম আদালতে বুধবার সন্ধ্যায় দেয়া জবানবন্দিতে বাবু এ কথা জানিয়েছে।

টাঙ্গাইলের এসপি সঞ্জিত কুমার রায় বৃহস্পতিবার তার কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বাবু আহমেদের আদালতে জবানবন্দি দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এসপি জানান, ভূঞাপুরের ফলদা বাজারের সিয়াম স্টোরে বাবু কর্মচারী ছিলেন। গত মঙ্গলবার বিকেলে ওই দোকানের মালিক মো. সেহাব উদ্দিন এক ক্রেতার এক কেজি ডাল ছোট-বড় পলিথিনে দেয়া নিয়ে বাবুকে গালমন্দ করেন। এতে বাবু ক্ষুদ্ধ হয়। পরে বাবু সেহাব উদ্দিনের বাড়িতে যান। এ সময় সেহাব উদ্দিনের মা আহাতন বেওয়াও তাকে গালি দেয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বাবু পাশে থাকা মাছ কাটার বটি দিয়ে আহাতন বেওয়ার গলা কাটেন। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। এ সময় বাড়িতে অন্য কেউ ছিল না। 

বাবু জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ী উপজেলার চররৌহা গ্রামের খলিলুর রহমানের ছেলে। তিন মাস আগে সে সেহাব উদ্দিনের দোকানে চাকরি নেয়। 

ঘটনার পর বাবু পালিয়ে যাওয়ার উদ্দেশ্যে বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্ব প্রান্তের রেলওয়ে স্টেশনে যায়। পরে ভূঞাপুর থানা পুলিশ তাকে সেখান থেকে সন্ধ্যায় আটক করে। 

ভূঞাপুর থানার ওসি রাশিদুল ইসলাম জানান, আটকের পর জিজ্ঞাসাবাদে বাবু আহাতন বেওয়াকে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। পরে আদালতে জবানবন্দি দিতে রাজি হয়। 

এ ঘটনায় নিহতের ছেলে সেহাব উদ্দিন বাদী হয়ে ভূঞাপুর থানায় মামলা করেছেন। 

বুধবার তাকে টাঙ্গাইল বিচারিক হাকিম আদালতে হাজির করা হলে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। বিচারিক হাকিম সুমন কুমার কর্মকার তার জবানবন্দি লিপিবদ্ধ করেন। পরে তাকে জেলহাজতে পাঠিয়ে দেয়া হয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ