মার্কিন জাতিকে বিভক্ত করার চেষ্টা করছেন ট্রাম্প: জেমস ম্যাটিস

মার্কিন জাতিকে বিভক্ত করার চেষ্টা করছেন ট্রাম্প: জেমস ম্যাটিস

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৪:৫২ ৪ জুন ২০২০  

ছবি: ট্রাম্প ও ম্যাটিস

ছবি: ট্রাম্প ও ম্যাটিস

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে জাতিকে বিভক্ত করার অভিযোগ তুলেছেন তারই সাবেক প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেমস ম্যাটিস। এছাড়া তার বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগও এনেছেন তিনি।

মঙ্গলবার দ্য আটলান্টিক ম্যাগাজিনে প্রকাশিত একটি লেখায় ট্রাম্পের প্রতি নিজের ক্ষোভ প্রকাশ করে ম্যাটিস জানান, কৃষ্ণাঙ্গ নাগরিক জর্জ ফ্লয়েড হত্যাকাণ্ডের জেরে শুরু বিক্ষোভ ট্রাম্প যেভাবে সামাল দিচ্ছেন তাতে তিনি ক্ষুব্ধ ও হতভম্ব হয়ে পড়েছেন। এছাড়া ট্রাম্প পরিণত নেতৃত্ব দিতে ব্যর্থ হয়েছেন বলেও মনে করেন তিনি।

ট্রাম্প প্রশাসনের প্রথম প্রতিরক্ষামন্ত্রী ছিলেন ম্যাটিস। তবে ২০১৮ সালে ট্রাম্প সিরিয়া থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিলে পদত্যাগ করেন তিনি। তারপর থেকেই মূলত নিরব ছিলেন ম্যাটিস। তবে বুধবার তিনি সেই দীর্ঘ নিরবতা ভাঙেন।

আটলান্টিকের নিবন্ধে ম্যাটিস লিখেছেন, ‘আমার জীবদ্দশায় ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রথম প্রেসিডেন্ট যিনি আমেরিকান জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করার চেষ্টা করেননি-এমনকি রক্ষা করার ভানও করেননি। এর পরিবর্তে তিনি আমাদের বিভক্ত করার চেষ্টা করেছেন।’ তিনি লেখেন, ‘তিন বছর ধরে এই অনবরত চেষ্টার পরিণতি আমরা দেখতে পাচ্ছি। আমরা তিন বছর ধরে অপরিণত নেতৃত্বের পরিণাম দেখতে পাচ্ছি।’

আফ্রিকান-আমেরিকান নাগরিক জর্জ ফ্লয়েড হত্যাকাণ্ডের জেরে যুক্তরাষ্ট্রে শুরু হওয়া বর্ণবাদ বিরোধী বিক্ষোভের ঢেউ নিয়েও মুখ খোলেন তিনি। ওই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় চার পুলিশ কর্মকর্তাকে অভিযুক্ত করা হয়েছে।

ওই বিক্ষোভ প্রসঙ্গে ম্যাটিস লেখেন, ‘লাখ লাখ মানুষের এই বিক্ষোভ আমাদের মনে করিয়ে দিচ্ছে আমরা আমাদের মূল্যবোধ নিয়ে বাঁচতে চাই... জাতি হিসেবে বাঁচতে চাই। অল্প সংখ্যক আইন ভঙ্গকারীদের কারণে আমরা লক্ষ্যচ্যুত হবো না।’ বিক্ষোভ দমনে সেনাবাহিনীর ব্যবহার নিয়েও মন্তব্য করেন তিনি। ম্যাটিস লেখেন, ‘আমি কখনো স্বপ্নেও ভাবিনি যে নিজ দেশের নাগরিকদের সাংবিধানিক অধিকার হরণের নির্দেশ সেনাবাহিনীকে দেয়া হবে’।

জেমস ম্যাটিসের ওই নিবন্ধ প্রকাশের পরই তার বিরুদ্ধে পাল্টা সমালোচনা মুখর হয়ে ওঠেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ধারাবাহিক টুইট বার্তায় ম্যাটিস সম্পর্কে ট্রাম্প লেখেন, ‘আমি তার নেতৃত্ব দেয়ার ধরন বা অন্য বেশি কিছু পছন্দ করতাম না আর অনেকেই আমার সঙ্গে একমত ছিলেন। চলে যাওয়ায় খুশি হয়েছিলাম।’

সূত্র: বিবিসি

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী