Alexa মান্না-ইলিয়াস কাঞ্চনের নায়িকার জীবন কাটছে ফুল বিক্রি করে

মান্না-ইলিয়াস কাঞ্চনের নায়িকার জীবন কাটছে ফুল বিক্রি করে

বিনোদন ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৪:৪১ ৩১ আগস্ট ২০১৯   আপডেট: ১৪:৫৭ ৩১ আগস্ট ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

বাংলা চলচ্চিত্রের এক সময়ের জনপ্রিয় নায়িকা সাহিনা সিকদার বনশ্রী অভিনয় করেছেন বেশ কিছু সিনেমায়।  ১৯৯৬ সালে ‘সোহরাব-রুস্তম’ ছবির মাধ্যমে বড় পর্দায় অভিষেক হয় তার। এ ছবিতে তার নায়ক ছিলেন ইলিয়াস কাঞ্চন। এরপর তিনি ‘নেশা’, ‘মহাভূমিকম্প’, ‘প্রেম বিসর্জন’, ‘ভাগ্যের পরিহাস’ নামের চলচ্চিত্রগুলোতে অভিনয় করে জনপ্রিয়তা পান।  

এক সময় আলিশান ফ্ল্যাটে থাকলেও বর্তমানে মোহাম্মদপুরের শেখের টেকের একটি বস্তিতে থাকেন তিনি। দারিদ্র্যতার কবলে পড়ে বাসে বাসে বই বিক্রি করেছেন, ফুল বিক্রি করেছেন শাহবাগে।

তিনি জানান, বিয়ের পর প্রোডাকশন হাউজের মালিক মোহম্মদ ফারুক ঠাকুরের সঙ্গে যোগাযোগ করার পর তিনি বাংলা সিনেমায় আমাকে সুযোগ করে দিয়েছিলেন। ইলিয়াস কাঞ্চন, মান্না, রুবেল, অমিত হাসানসহ অনেকের সঙ্গে ফিল্মে প্রধান নায়িকা চরিত্রে কাজ করেছি। তবে তিনি শর্ত দিয়েছিলেন যে বিয়ের বিষয়টি গোপন রাখতে হবে। তাই বিয়ের বিষয় গোপন রেখেই ফিল্মে কাজ শুরু করেছিলাম।

বনশ্রী বলেন, কন্যা সন্তান শ্রাবন্তীর জন্মের পর কিছুদিন চলচ্চিত্রে কাজ করা হলেও পরে আর কাজ করা হয়ে ওঠেনি বনশ্রীর। চলচ্চিত্র থেকে দূরে সরে যান। পরে একটি ছেলে সন্তানও হয় তার। কিন্তু সংসারও ভেঙে যায়।

তিনি আরো বলেন, প্রথমত চলচ্চিত্র ক্যারিয়ার শেষ হবার সঙ্গে সঙ্গে স্বামীও ছেড়ে দেয় আমাকে। একমাত্র মেয়ে শ্রাবন্তীকেও হারিয়ে ফেলি। একমাত্র ছেলে সন্তান আপন ছিল কোলে।  টাকা-পয়সাও একটা সময় শেষ হয়ে যায়। তখন বাধ্য হয়ে রাস্তায় নেমে বই বিক্রি ও পরে ফুল বিক্রি করেছি।

বনশ্রী আরো বলেন, নায়িকা থাকাকালীন ঢাকা ক্লাবে একটা সময় যাওয়া আসা ছিল। সেখানে কাজ করতেন জীবন ভাই। তিনি একদিন আমাকে রাস্তায় দেখে ফুল বিক্রির কাজ দেন। ছেলেকে বর্তমানে সাভারের একটি এতিমখানায় বড় করছি। মাঝে সরকারি সহায়তা ছাড়াও ইলিয়াস কাঞ্চন, চ্যানেল আই, নায়ক-প্রযোজক অনন্ত জলিলসহ বেশকিছু প্রতিষ্ঠান সাহায্য করেছেন বলে জানান তিনি। 

তিনি বলেন, বিভিন্ন পত্রিকায় একটা সময় আমার অসুস্থতা ও দারিদ্র্যতার খবর প্রকাশের পর সাহায্য করেছেন অনেকে। সবার সাহায্যের পর এখন ভাড়া দিয়ে খেয়ে পড়ে বেঁচে থাকতে পারছি। অসুস্থ এখন। ফুলের ব্যবসার সঙ্গে জড়িত আছি। ভবিষ্যতে শাহবাগে একটি ফুলের দোকান দেবার স্বপ্ন দেখছেন বনশ্রী।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে