Alexa মাদরাসাছাত্রীর সর্বনাশ করে পালাতে পারলেন না যুবক

মাদরাসাছাত্রীর সর্বনাশ করে পালাতে পারলেন না যুবক

দিনাজপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২০:০৭ ২ নভেম্বর ২০১৯  

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

দিনাজপুরের বীরগঞ্জে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক মাদরাসাছাত্রীর সর্বনাশ করেছেন আমিনুল ইসলাম নামে এক যুবক। এতে ওই ছাত্রীটি অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েছেন বলে দাবি করেছেন তার পরিবার। 

ঘটনাটি জানাজানি হলে পালিয়ে যাবার সময় অভিযুক্ত মো. আমিনুল ইসলামকে আটক করে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছেন এলাকাবাসী। শনিবার আদালতের মাধ্যমে আমিনুল ইসলামকে আদালতে প্রেরণ করেছে পুলিশ ।  

উপজেলার পাল্টাপুর ইউপির পাল্টাপুর মাঝাপাড়া  গ্রামের হাসিম উদ্দিনের ছেলে মো.আমিনুল ইসলাম পাল্টাপুর মাদরাসার সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করেন। একপর্যায়ে ওই ছাত্রী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে বিষয়টি পরিবারের সদস্যদের জানায় সে।

পরিবারের লোকজন স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. আজাদকে অবহিত করে। মো. আজাদ বিষয়টি সত্যতা যাচাই এবং আইনি পরামশের্র লক্ষ্যে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে শুক্রবার স্থানী ভাবে আলোচনার আয়োজন করে। কিন্তু শুক্রবার সকালে অভিযুক্ত মো. আমিনুল ইসলাম পালিয়ে যাবার চেষ্টা করলে স্থানীয় লোকজন তাকে আটক করে পুলিশে খবর দেয়। সংবাদ পেয়ে বীরগঞ্জ থানার এসআই আলন চন্দ্র রায়ের নেতৃত্বে একদল পুলিশ মো. আমিনুল ইসলামকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

ছাত্রীর বাবা জানান, অভিযুক্ত মো. আমিনুল ইসলাম তার প্রতিবেশী এবং দূর সম্পর্কে মামা শ্বশুর। আত্মীয়তার সুত্রধরে আমিনুল ইসলামের বাড়িতে তার মেয়ে যাতায়াত করত। এক সপ্তাহ আগে মেয়েটি তার মাকে বিষয়টি খুলে বললে বিষয়টি প্রথমে স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. আজাদকে জানানো হয়। এরপর থেকে তাদের পরিবারকে নানাভাবে হুমকি দেয়া হচ্ছিল।

বীরগঞ্জ থানার এসআই আলন চন্দ্র রায় জানান, সংবাদ পাওয়া মাত্রই পুলিশ তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযুক্তকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। 

বীরগঞ্জ থানার ওসি সাকিলা পারভিন জানান, এ ব্যাপারে ছাত্রীটির বাবা বাদী হয়ে বীরগঞ্জ থানায় মামলা করেছে । অভিযোগের প্রেক্ষিতে ছাত্রীটির ডাক্তারি পরীক্ষা এবং অভিযোগের তথ্য উপাত্ত সংগ্রহের জন্য পুলিশ কাজ শুরু করেছে। 


 

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ