Alexa মাঠেই চিৎকার-চেঁচামেচি, পা ধরে কান্নাকাটি

মাঠেই চিৎকার-চেঁচামেচি, পা ধরে কান্নাকাটি

স্পোর্টস ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১১:৫০ ২০ জুলাই ২০১৯   আপডেট: ১১:৫১ ২০ জুলাই ২০১৯

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

জেএফএ কাপ অনূর্ধ্ব-১৪ জাতীয় মহিলা চ্যাম্পিয়নশীপের ফাইনাল খেলার কথা ছিল ঠাকুরগাঁও জেলা দলের। কিন্তু ফাইনাল খেলার আগে হঠাৎ করেই বাফুফে জানায় তারা ফাইনাল খেলতে পারবে না। কারণ হিসেবে ঠাকুরগাঁও দলে চারজন অবৈধ খেলোয়াড় খেলেছে বলে অভিযোগ করা হয়! 

ঠাকুরগাঁও বাদ পড়ায় ময়মনসিংহ জেলার বিপক্ষে মাঠে নামে রংপুর। খেলা গড়ায় টাইব্রেকারে। ৪-২ গোলে ময়মনসিংহ জেলাকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় রংপুর।

ঠাকুরগাঁওয়ের চার খেলোয়াড়ের বয়স বেশি, সেমিফাইনালে পরাজিত ময়মনসিংহের এমন প্রতিবাদ টিকে গেলে দলটি বাদ পড়ে। এসব কারণে পুলিশি হস্তক্ষেপে ফাইনাল ম্যাচ দেড় ঘণ্টা দেরিতে শুরু হয়।

বাফুফের এমন সিদ্ধান্তে ঠাকুরগাঁওয়ের মেয়েরা ভেঙ্গে পড়ে। মাঠেই তারা কান্নাকাটি শুরু করে। ঠাকুরগাঁওয়ের খেলোয়াড়দের দাবি, সেমিফাইনালে ময়মনসিংহ হেরে গিয়ে চার ফুটবলারের বয়স বেশি বলে অভিযোগ করে। তাহলে খেলোয়াড়রা এতদিন খেলে আসল কিভাবে? 

বাফুফে জানিয়েছে, সেমিফাইনালের পর হেরে যাওয়া ময়মনসিংহ প্রতিবাদে জানায় ঠাকুরগাঁওয়ের চার ফুটবলার আগেও জেএফএ কাপ ফুটবল খেলেছে দুইবার করে। টুর্নামেন্টের নিয়ম অনুযায়ী কোনো খেলোয়াড় দুইবারের বেশি খেলতে পারবে না। এজন্য ময়মনসিংহকে ফাইনালে খেলার সুযোগ দেয়া হয়।

কিন্তু ঠাকুরগাঁওয়ের খেলোয়াড়রা মাঠ ছেড়ে আসতে রাজি হচ্ছিল না। পুলিশ কোচ এবং ম্যানেজারকে পাঠালে তারা পা ধরে কান্নাকাটি করে এবং অনেক সময়ক্ষেপণের পর খেলোয়াড়দের ফিরিয়ে আনা হয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/ববি/টিআরএইচ