Alexa মধুর চক্করে জীবন বিষাক্ত, খাটতে হলো জেল 

মধুর চক্করে জীবন বিষাক্ত, খাটতে হলো জেল 

নিউজ ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৭:৪৪ ২৫ আগস্ট ২০১৯  

ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

জীবন সুখ স্বাচ্ছন্দ্যে পরিপূর্ণ হয়ে উঠলে সেই জীবনকে বলা হয় মধুময়। এই ক্ষেত্রে জীবনকে তুলনা করা হয় মধুর মিষ্টতার সঙ্গে। কিন্তু কারো জীবন সেই মধুর কারণেই বিষাক্ত হয়ে উঠেছে এমন দৃষ্টান্ত নেই।

জামাইকার লিওন হউটনের জীবনে এমন ঘটনা ঘটেছে। তিন বোতল প্রিয় মধু আনতে গিয়ে পুলিশের চোখে মাদক পাচারকারী বনে যান তিনি। তিন মাসা টানা জেল খাটার পর যখন নিরপরাধ প্রমাণিত হয়ে বাইরে বের হওয়ার আগেই তছনছ হয়ে যায় তার। ছয় সন্তানের পরিবারও পথে বসার উপক্রম হয়।

গত ২৯ ডিসেম্বর বাল্টিমোর-ওয়াশিংটন আন্তর্জাতিক থুরগুড মার্শাল বিমানবন্দরের সেই দিনের কথা মনে করে  হউটন বলেন, ওরা আমার জীবন তছনছ করে দিয়েছে। আমি সারা বিশ্বকে জানাতে চাই যে এই ব্যবস্থাপনায় কতটা গলদ আছে। আমার চারপাশের মানুষদের যদি প্রবল মানসিক জোর না থাকত তাহলে তারা আমাকে ছেড়ে চলে যেতেন।

ওই দিন জামাইকা থেকে আমেরিকার মেরিল্যান্ডে নিজের বাড়িতে ফিরছিলেন লিওন হউটন। বিগত ১০ বছর ধরে তিনি মেরিল্যান্ডেই আছেন। আর প্রতিবছর ডিসেম্বরে জামাইকাতে যান মায়ের সঙ্গে দেখা করতে। হউটন মধু খেতে খুব ভালোবাসেন। ফেরার সময় জামাইকার একটি দোকান থেকে তিন বোতল মধু কিনে নিয়েছিলেন।

বাল্টিমোর-ওয়াশিংটন থুরগুড মার্শাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে মধুর বোতলগুলোকে মাদক তরল ভেবে তাকে পুলিশ গ্রেফতার করে। আগাম পরীক্ষা না করেই তাকে জেলে ঢুকিয়ে দেয়া হয়। তার এক সপ্তাহ পরে পরীক্ষার রিপোর্টে দেখা যায় বোতলের ওই তরল মাদক নয়। কিন্তু তারপরও ছাড়া পাননি হউটন। ছাড়া পান তিন মাস পর। ওই তরল যখন আরো একবার পরীক্ষা করে পুলিশ নিশ্চিত হয় যে তা মাদক নয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ