ভারতে ৩০ জুন পর্যন্ত বাড়লো লকডাউন, তবে...

ভারতে ৩০ জুন পর্যন্ত বাড়লো লকডাউন, তবে...

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ২০:০৯ ৩০ মে ২০২০   আপডেট: ২০:১২ ৩০ মে ২০২০

সংগৃহীত

সংগৃহীত

ভারতে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বৃদ্ধি পাওয়ায় আরো একমাস লকডাউন বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটির সরকার। তবে শুধুমাত্র ক্যান্টনমেন্ট এলাকা ছাড়া দেশের বাকি অংশে আগামী ৮ জুন থেকে শপিংমল ও রেস্টুরেন্ট খোলার অনুমতি দেয়া হয়েছে।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের জারি করা বিবৃতিতে বলা হয়েছে— ধাপে ধাপে খুলে দেয়া হবে সব কিছু। লকডাউন চলবে আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়েছে- ১ জুন থেকে রাতের কার্ফু কমছে। সন্ধ্যা ৭টার বদলে কার্ফু শুরু হবে রাত ৯টায়। চলবে ভোর ৫টা পর্যন্ত।

প্রথম ধাপে, ক্যান্টনমেন্ট জোনের বাইরে, ৮ জুন থেকে খোলা যাবে ধর্মীয় স্থান, বেসরকারি অফিস, হোটেল-রেস্তরাঁ, শপিং মল। তবে সামাজিক দূরত্ব বিধি মেনে চলতে হবে কঠোর ভাবে।

দ্বিতীয় ধাপে খোলা যাবে স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়, কোচিং সেন্টার। তবে রাজ্য সরকারকে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে বলা হয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলির কর্তৃপক্ষ এবং অভিভাবকদের সঙ্গে কথা বলে। তার পর জুলাই মাসে এই সব প্রতিষ্ঠান খোলা যেতে পারে।

গোটা দেশেই কয়েকটি বিষয়ের উপর নিষেধজ্ঞা আপাতত জারিই থাকছে। এর মধ্যে থাকছে মেট্রো রেল, আন্তর্জাতিক যাত্রিবাহী বিমান, সিনেমা হল, বিনোদন পার্ক, থিয়েটার হল, বার, জিম, সুইমিং পুল-সহ সামাজিক-রাজনৈতিক-ক্রীড়া-বিনোদন-সাংস্কৃতিক এবং ধর্মীয় সমস্ত ধরনের বড় অনুষ্ঠান ও জমায়েত।

তৃতীয় দফায় গিয়ে এগুলো খোলার দিন ঘোষণা করা হবে পরিস্থিতি বিবেচনা করে।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দ্বিতীয় মেয়াদের একবছর পূর্ণ উপলক্ষ্যে জাতির উদ্দেশে একটি চিঠি লিখে নিজের বার্তা দিয়েছেন তিনি।

নিজের চিঠিতে প্রধানমন্ত্রী লিখেন, এই ধরণের মারাত্মক সঙ্কটে কখনোই এমন দাবি করা যায় না যে কেউ কোনও অসুবিধা বা সমস্যায় পড়েননি। আমাদের দেশের শ্রমজীবী মানুষজন, পরিযায়ী শ্রমিক, ক্ষুদ্র শিল্পের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিরা এবং কারিগর, হকার সহ দেশের সব ধরণের মানুষই প্রচণ্ড দুর্ভোগ সহ্য করছেন।

তবে, আমাদের এদিকে সবসময় খেয়াল রাখতে হবে যে আমাদের এইসব সমস্যাগুলো যেন কোনোভাবেই বিপর্যয়ের আকার না নেয়", একথাও চিঠিতে উল্লেখ করেন মোদি।

কাজ হারিয়ে যেসব মানুষ হাজার হাজার কিলোমিটার হেঁটে বা সাইকেল চালিয়ে বা ট্রাকে করে ঘরে ফেরার চেষ্টা করেছেন সেই কথাও স্মরণ করেন প্রধানমন্ত্রী।  করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে জারি করা লকডাউন দেশে যে আরো বড় সমস্যা সৃষ্টি করেছে, সব দেখেশুনে এমন কথা কিন্তু বলছেন অনেকেই। ঠিক সেই সমালোচনার সময়েই চিঠি লিখে নিজের মনের কথা দেশের সাধারণ মানুষের সঙ্গে ভাগ করে নিলেন মোদি।

তিনি বলেন, আমাদের দেশ একসঙ্গে অনেকগুলো চ্যালেঞ্জ এবং সমস্যার মুখোমুখি হয়েছে। আমি দিনরাত কাজ করে যাচ্ছি। আমার কাজে হয়তো কিছু ঘাটতি থাকতে পারে তবে আমাদের দেশের মধ্যে কোনও উদ্যমের অভাব নেই। সুতরাং, আমি আমার নিজের শক্তির থেকে অনেক বেশি দশের ক্ষমতায় বিশ্বাস রাখি। তাই নিজেকে বিশ্বাস করুন", ফের একবার স্বনির্ভর ভারতের মন্ত্রটি আওড়ে একথা লিখেছেন প্রধানমন্ত্রী। ভারত এই অবস্থা থেকে অর্থনৈতিকভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে এবং গোটা বিশ্বকে অবাক করে দেবে এ বিশ্বাস করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী।

ডেইলি বাংলাদেশ/এস