Alexa বুদ্ধিজীবীদের কুকুর বলতে না পারলে বাঁদর বলুন: বিজেপি নেতা

বুদ্ধিজীবীদের কুকুর বলতে না পারলে বাঁদর বলুন: বিজেপি নেতা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

প্রকাশিত: ১৭:০৫ ২১ জানুয়ারি ২০২০   আপডেট: ১৭:০৬ ২১ জানুয়ারি ২০২০

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

দিলীপ-সৌমিত্রের পর এবার বুদ্ধিজীবীদের নিয়ে বেফাঁস মন্তব্য করলেন ভারতীয় ক্ষমতাসীন দলের নেতা সায়ন্তন বসু। সোমবার তিনি বলেছেন, ‘বিশিষ্টজনদের ক্ষেত্রে কুকুর শব্দটি প্রয়োগে আপত্তি থাকলে তাদের বাঁদর বলুন’। বিজেপি নেতার এমন মন্তব্যে এরইমধ্যে দেশটিতে নতুন করে বিতর্ক শুরু হয়েছে।

হিন্দুস্তান টাইমসের তথ্যানুযায়ী, সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) বোঝাতে বাড়ি বাড়ি যাচ্ছেন বিজেপি নেতা কর্মীরা। সোমবার পশ্চিম মেদিনীপুরের জেলার খড়গপুরে যান বিজেপি রাজ্য সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু। সেখানেই তিনি বলেন, কুকুর শব্দে আপত্তি থাকলে আপনারা বাঁদর বলতে পারেন। আমার নাম করে তাদের বাঁদর বলে দিন।

এর আগে রোববার বসিরহাটের একটি সভায় বিষ্ণুপুরের সাংসদ সৌমিত্র খাঁ বুদ্ধিজীবীদের আক্রমণ করেন। সেদিন তিনি বলেছিলেন, যারা পার্কস্ট্রিট কাণ্ডের মতো ঘটনায় চুপ করে থাকেন তারা তৃণমূলের পোষা কুকুর ছাড়া আর কিছু নয়।

এরপরই সৌমিত্র খাঁয়ের এই মন্তব্যকে ঘিরেই শুরু হয় বিতর্ক। সেই বিতর্কের মধ্যেই বুদ্ধিজীবীদের নিয়ে সৌমিত্র খাঁয়ের পথে হাঁটলেন সায়ন্তন বসু।

তবে খড়গপুরে গিয়ে সায়ন্তন বসু সংখ্যালঘুদের উদ্দেশ্যে বলেন, এই দেশে বসবাসকারী সংখ্যালঘুদের চিন্তার কোনো কারণ নেই। হিন্দু মুসলমান কোনো ব্যাপার না। কুকুর বাঁদরের কাছে না, আমরা জনগনের কাছে যাব।

কয়েক মাস আগেও বুদ্ধিজীবীদের আক্রমণ করেছিলেন বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু। সেদিন তিনি বলেছিলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সন্ধ্যায় একটা বোতল ধরিয়ে দিলে এরা তৃণমূলের হয়ে লাফালাফি শুরু করে দেবে। এরা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে পাঁচশো-হাজার টাকায় বিক্রি হয়ে গেছেন। অসহিষ্ণুতার প্রতিবাদে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দেয়ায় পর এই ভাষাতে বুদ্ধিজীবীদের আক্রমণ করেছিলেন তিনি।

এছাড়া দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দিল্লির সদর দফতরে দলের নতুন সভাপতি নির্বাচনের পর বক্তব্যে বলেন, বুদ্ধিজীবীরা কোনো দিন আমাদের সঙ্গে ছিলেন না। আমাদের ওদের সমর্থন দরকার নেই। ওদের ছাড়াই আমরা মানুষের সমর্থনে জিতব।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএএইচ